হোম » প্রধান সংবাদ » নবীনগরে তিতাস ও বুড়ি নদীর দূষণ রোধে বিভিন্ন শ্রেণীপেশার মানুষের মানববন্ধন

নবীনগরে তিতাস ও বুড়ি নদীর দূষণ রোধে বিভিন্ন শ্রেণীপেশার মানুষের মানববন্ধন

সোহেল মিয়া, নবীনগর (ব্রাহ্মণবাড়িয়া): ‘নদী বাঁচাও, নবীনগর বাঁচাও’ এমন স্লোগানে রোববার সকালে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরের সর্বস্তরের জনগণের উদ্যোগে সচেতন নাগরিকদের ব্যানারে এক মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধন চলাকালে এসময় বক্তারা তিতাস ও বুড়ী নদী খননে অনিয়ম, দুর্নীতি, অবহেলা ও পৌরসভার বাসা-বাড়ির ময়লা-আর্বজনা ফেলে দূষণ, দখল ও ভরাটের বিরুদ্ধে তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন করে বক্তব্য প্রদান করেন।
মানববন্ধনে অংশগ্রহণকারী আব্দুল বাতেন সুমন বলেন, নবীনগরে পৌরসভার জন্য নির্দিষ্ট ডাম্পিং স্টেশন থাকা সত্ত্বেও কেন নদীতে ময়লা ফেলা হচ্ছে? দ্রুত এ বিষয়ে এমপি এবাদুল করিম বুলবুল সাহেব ও মেয়র এড. শিব শংকর দাসের দৃষ্টি কামনা করছি।
এ সময় বক্তারা তিতাস ও বুড়ী নদী খননে অনিয়ম, দুর্নীতি, অবহেলা ও পৌরসভার বাসা-বাড়ির ময়লা-আর্বজনা ফেলে দূষণ, দখল ও ভরাটের বিরুদ্ধে তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন করে বক্তব্য প্রদান করেন। ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নবীনগর  পৌর এলাকার সকল ময়লা ফেলে দীর্ঘদিন যাবৎ তিতাস ও বুড়ি নদীর দখল এবং দূষণ করছেন। তারই প্রতিবাদে আজ ১৯ জুলাই রবিবার সকালে  সম্মিলিত উদ্যোগে নদী দূষণ রোধে ব্যানার ফেস্টুন হাতে রাস্তায় দাঁড়িয়ে মানব বন্ধন করেছেন বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষজন।
উৎপল গুহ রনি বলেন, দীর্ঘদিন যাবৎ তিতাস ও বুড়ী নদী খননের নামে প্রহসন চলছে। কচ্ছপ গতিতে চলা ড্রেজিংয়ে কোন উপকার পাচ্ছেন না নবীনগরবাসী।বক্তারা বলেন, আমাদের নবীনগরবাসীর এখন একটাই দাবি নদী বাঁচান, নবীনগরের সৌন্দর্য বাঁচান।মানববন্ধনে কৃষক, শিক্ষক, শ্রমজীবীসহ সর্বসাধারণ জনগণ একাত্মতা ঘোষণা করে সাধুবাদ জানিয়েছেন।
এই মানব বন্ধন শেষ হওয়ার পর আন্দোলনকারীরা নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখে রাস্তায় চলাচলরত মাস্ক ছাড়া ব্যক্তিদের মাস্ক বিতরণ করেন।এসময় উপস্থিত ছিলেন, প্রভাষক মো.গোলাম কবিরিয়া, শিক্ষক মামুনুর রশিদ, সাংবাদিক মিঠু সূত্রধর পলাশ, উৎপল গুহ, জাকারিয়া জাবেদ, ছাত্রনেতা আব্দুল বাতেন,মাজেদুল ইসলাম, রহমত উল্লাহ স্বপন, সোহানুর রহমান,সাংবাদিক সঞ্জয় শীল, মাইদুল ইসলাম চৌধুরী,হাবুল মৃধা,শিক্ষক মো. কালন প্রমুখ।
শেয়ার করুন আপনার পছন্দের সোশ্যাল মিডিয়ায়
error: Content is protected !!