JavaScript must be enabled in order for you to see "WP Copy Data Protect" effect. However, it seems JavaScript is either disabled or not supported by your browser. To see full result of "WP Copy Data Protector", enable JavaScript by changing your browser options, then try again.
সংবাদ শিরোনাম:

ডুমুরিয়ায় চেয়ারম্যানের নির্দেশে ইজারাকৃত নদীর মাছ লুটপাট ও জাল কর্তনের অভিযোগ

খান সাইফুল ইসলাম, ডুমুরিয়া (খুলনা ) প্রতিনিধি: ডুমুরিয়া উপজেলার মাগুরখালী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বিমল কৃষ্ণ সানার নির্দেশে তার সাঙ্গপাঙ্গরা হাতিটানা নদীতে মাছ লুট ও নিরাপত্তা জাল কেটে ও লুট করে নিয়ে গেছে। বুধবার সকালে তারা এ লুটপাট করে। এ ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত মৎস্যজীবীরা ডুমুরিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট প্রতিকার চেয়ে আবেদন করেছে। উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট দেয়া অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ডুমুরিয়া উপজেলার হাতিটানা মৎস্যজীবী সমবায় সমিতির পক্ষ থেকে মাগুরখালী ইউনিয়নের হাতিটানা নদীটি (বন্ধ) বিগত ১৪২৩, ১৪২৪ ও ১৪২৫ বাংলা বছরের জন্য জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে সায়রাত কেস নম্বর- ১৩/২০১৬ ইং মূলে ইজারা গ্রহণ করে। তারা সরকারি নিয়ম অনুযায়ী প্রতি বছর খাজনা সহ অন্যান্য খাতে অর্থ পরিশোধ করে থাকে। কিন্তু স্থানীয় চেয়ারম্যান বিমল কৃষ্ণ সানাসহ তার লোক হিসেবে চিহ্নিত কোড়াকাটা গ্রামের সঞ্জয় সানা, উদয় সানাসহ আরো কয়েকজন তাদের ইজারাকৃত নদীতে অবৈধ ভাবে জাল দিয়ে মাছ ধরে আসছিলো।

বিষয়টি নিয়ে ভুক্তভোগীরা গত ১৬ সেপ্টেম্বর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট অভিযোগ জানালে তিনি বিষয়টি তদন্ত করে অবৈধ দখলদারদের উচ্ছেদ করার পদক্ষেপ নেন। কিন্তু চেয়ারম্যানের সাঙ্গপাঙ্গরা খালের মুখে এখনও বেআইনীভাবে প্রায় ৩০ বিঘা জমি বাঁধ দিয়ে চিংড়িসহ অন্যান্য মাছ চাষ করে আসছে। অবৈধ দখলদাররা সে দখল ছাড়েনি। এদিকে খাল থেকে চেয়ারম্যানের দখলবাজদের উচ্ছেদ করা হলে মৎস্যজীবীরা ওই খালে রুই, কাতলাসহ বিভিন্ন প্রজাতির দেশীয় প্রজাতির মাছের পোনা ছাড়েন। পোনা মাছ নদীর বাইরে যাতে চলে না যেতে পারে তার জন্য একটি ভেন্ডি জাল (বড় ছিদ্রযুক্ত) পেতে রাখা হয়। পূর্বের অবৈধ দখলদাররা স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের নির্দেশে গত মঙ্গলবার বিধান সানাসহ অজ্ঞাত আরও কয়েকজন মৎস্যজীবিদের জাল উঠিয়ে নেওয়ার জন্য হুমকি দিয়ে আসে। অন্যথায় তারা জাল কেটে তছনছ করে দেবে বলে জানায় ও প্রাণনাশের হুমকি দেয়।

তারই ধারাবাহিকতায় বুধবার ভোরে বিধান সানা, মিলন বালা, ভূষণ সানা, উদয় সানা, দিপংকর সানা, বিমল মন্ডল, জামিনি বালা, কুমারেশ ওরফে বাঘা বালা, সুজিত মন্ডল, সুশান্ত বিশ্বাস, বাবলু মন্ডল, দেব প্রসাদ মন্ডল, সিদ্ধার্থ মন্ডল, কৌশিক মন্ডলসহ অজ্ঞাত ২০/২৫ জন খালে লুটপাট চালায়। এসময়ে তারা মৎস্যজীবী সমিতির সদস্য যোতিন বাছাড়, তপন মন্ডল ও অমল সানাকে অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ, ভয়ভীতি ও জীবননাশের হুমকি দিয়ে মাছ, মাছ ধরা জাল, নৌকা ও হাতে থাকা মুঠোফোন লুটপাট করে নিয়ে যায়, যার আনুমানিক ক্ষতি দেড়লাখ টাকা। অভিযোগের বিষয়ে জানতে চেয়ে ইউপি চেয়ারম্যান বিমল কৃষ্ণ সানার মোবাইল ফোনে বার বার চেষ্টা করলেও ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।
এ বিষয়ে ডুমুরিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোছাঃ শাহানাজ বেগম বলেন, জলাশয়ে মৎস্যজীবী সম্প্রদায়ের অধিকার প্রতিষ্ঠায় অবৈধ দখলদার উচ্ছেদ করা হয়। হাতিটানা মৎস্যজীবী সমবায় সমিতির পক্ষ থেকে হাতিটানা নদী থেকে মাছ লুটের ও জাল কেটে দিয়ে ক্ষতি করা হয়েছে বলে একটি অভিযোগ পেয়েছি। এ নিয়ে বৃহস্পতিবার বিকেলে চেয়ারম্যান বিমল সানাসহ অন্যদেরকে হাজির হতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। বেআইনীভাবে যদি তারা কিছু করে অবশ্যই তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক আইনী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সংবাদ পড়ুন, লাইক দিন এবং শেয়ার করুন

Comments

comments

About আওয়াজ অনলাইন

x

Check Also

শিবগঞ্জ ইউনিয়ন ৯নং ওয়ার্ড বাসীর কথা রাখলেন চেয়ারম্যান সাবু

কামরুল হাসান শিবগঞ্জ (বগুড়া) প্রতিনিধিঃ বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলার শিবগঞ্জ সদর ইউনিয়ন ৯নং ওয়ার্ড বাসীর কথা ...

error: Content is protected !!