হোম » প্রধান সংবাদ » আলফাডাঙ্গায় অবাধে কারেন্ট জালে মা মাছ ও পোনা নিধনের হিড়িক

আলফাডাঙ্গায় অবাধে কারেন্ট জালে মা মাছ ও পোনা নিধনের হিড়িক

আলফাডাঙ্গা প্রতিনিধিঃ সরকারি আইন লঙ্ঘন করে ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গা উপজেলায় মধুমতি নদীসহ খাল-বিল ও জলাশয়ে কারেন্ট ও বেড় জাল দিয়ে অবাধে চলছে মাছ ধরার হিড়িক। এতে জাটকা, ডিমওয়ালা, পোনা মাছসহ অন্যান্য জলজ প্রাণী অকালে মারা যাওয়ায় জীববৈচিত্র্য হুমকিতে পড়েছে। স্থানীয় লোকজনের অভিযোগ, উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মৎসজীবীদের কাছ থেকে ম্যানেজ হয়ে যথাযথভাবে তদারকি ও অভিযান না চালানোর কারণে জেলেরা ওই নিষিদ্ধ জাল ব্যবহার বন্ধ করেনি।
সরেজমিনে মধুমতি নদীর আলফাডাঙ্গা উপজেলার টিকরপাড়া, বানা, দীগনগর এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, সেখানে জেলেরা কারেন্ট  ও বেড় জাল পেতে মাছ ধরছেন। এতে বড় মাছের পাশাপাশি ধরা পড়ছে জাটকা এবং পাঙাশ, রুই, কাতল ও আইড় মাছের পোনা। এছাড়া এ জালে ডিমওয়ালা পুঁটি, ট্যাংরা, বজুরি, কই, পাবদা, ঢেলা ও বাইলা মাছ; ব্যাঙ, সাপ ও কুঁচেসহ অন্যান্য জলজ প্রাণীও আটকা পড়ছে।
উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা সুমন লাল দেবনাথ মৎস্যজীবীদের ম্যানেজ করার বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, ১৯৫০ সালে সরকারের জারি করা মৎস্য সুরক্ষা ও সংরক্ষণ আইনে বলা হয়েছে, কোনো ব্যক্তি কারেন্ট জালের উৎপাদন, বুনন, আমদানি, বাজারজাতকরণ, সংরক্ষণ, বহন, মালিক হতে বা ব্যবহার করতে পারবেন না। আইন ভঙ্গ করে যিনি কারেন্ট জাল দিয়ে মাছ ধরবেন, তাকে পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা বা এক থেকে দুই বছরের কারাদন্ড দেওয়া হবে। এ বিষয় তিনি  অব্যশই গুরুত্ব দিবেন ও অভিযান করবেন।
এই নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে মাছ ধরা হচ্ছে কেন জানতে চাইলে উপজেলার টিকরপাড়া এলাকার জেলে পরিশোধ, মহাদেব ও শান্ত  বলেন, ‘কারেন্ট জাল সহজে পরিবহনযোগ্য ও দাম কম। এতে মাছ ধরা পড়ে বেশি। এ জন্য এ জালে মাছ ধরছেন।’
উপজেলার এক মৎস্যজীবী জানান, উপজেলায় এখন প্রতিদিন গড়ে ১০-১২ টন মাছ ধরা হচ্ছে। বেশির ভাগ মাছই শিকার হচ্ছে কারেন্ট ও বেড় জালে। এর ৬০-৬৫ শতাংশই জাটকা, দেশি জাতের ডিমওয়ালা মাছ ও মা ইলিশ।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে উপজেলার মৎস্য দপ্তরের এক কর্মচারী বলেন, ‘কারেন্ট ও বেড়  জালের ব্যবহার বন্ধ না হলে দেশি জাতের মাছ টিকবে না। বিপন্ন হবে সাপ ও ব্যাঙসহ বিভিন্ন জলজ প্রাণীর জীবন। বিনষ্ট হবে জলজ জীববৈচিত্র্য। তিনি অভিযোগ করে বলনে, মৎস্য দপ্তরের লোকজনের উদাসীনতায় কারেন্ট জালের ব্যবহার বাড়ছে।
এ বিষয়ে জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মনিরুল ইসলাম জানান, কারেন্ট ও বেড় জালের ব্যবহার বন্ধ হয় সে বিষয়ে গুরুত্ব দেওয়া হবে। উপজেলা মৎস কর্মকর্তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ খতিয়ে দেখবেন বলেও জানান তিনি।
শেয়ার করুন আপনার পছন্দের সোশ্যাল মিডিয়ায়
error: Content is protected !!