JavaScript must be enabled in order for you to see "WP Copy Data Protect" effect. However, it seems JavaScript is either disabled or not supported by your browser. To see full result of "WP Copy Data Protector", enable JavaScript by changing your browser options, then try again.
সংবাদ শিরোনাম:

সিরাজগঞ্জ পুলিশী হামলা-নির্যাতনের প্রতিবাদে বিএনপি প্রার্থী রুমানা মাহমুদের সংবাদ সম্মেলন

হুমায়ুন কবির সুমন সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি : বিএনপির নির্বাচনী প্রচারণায় বিনা উস্কানিতী পুলিশের,নির্যানত, হামলা, গুলি ও টিয়ারশেল নিক্ষেপে বিএনপি প্রাথীসহ নেতা-কর্মীদের গুরতরভাবে আহত করার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলনে সিরাজগঞ্জ পুলিশ সুপার টুটুল চক্রবর্তী, সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ দাউদ ও ওসি তদন্ত রফিকুল ইসলামকে প্রত্যাহারের দাবী জানিয়েছেন সিরাজগঞ্জ-২ আসনের প্রার্থী ও জেলা বিএনপির সভাপতি বেগম রুমানা মাহমুদ। শনিবার দুপুরে সিরাজগঞ্জে নিজ বাসভবনে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বেগম রুমানা মাহমুদ আরো বলেন, নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সরকারের মদদে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী ও আওয়ামী সন্ত্রাসীরা এক হয়ে ধানের শীষের প্রার্থী সমর্থকদের ওপর বেপরোয়া হামলা,হুমকি ধামকি দিয়ে যাচ্ছে।

আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর ছত্রছায়ায় নির্বাচনী মাঠকে অশান্ত ও রক্তাক্ত করে তুলছে আওয়ামী লীগ। আবারো এক তরফা ভোটারশূন্য নির্বাচন করতে,জনগণকে নির্বাচনী মাঠ থেকে বিতারিত করতে বেপরোয়া হয়ে উঠেছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। গতকাল ১৪ ডিসেম্বর তারিখে সিরাজগঞ্জে বিএনপি প্রার্থী,কর্মী,সমর্থকদের ওপর বর্তমান ফ্যাসিবাদী-স্বৈরাচারী সরকারের পুলিশ বাহিনীর সদস্যদের নিষ্টুরতা বন্য হিং¯্রতাকে হার মানিয়েছে। বেগম রুমানা মাহমুদ বলেন, শুক্রবার বিকালে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা প্রকাশ্যে দেশীয় অস্ত্র-সস্ত্র নিয়ে বিএনপি অফিস সংলগ্ন এলাকায় আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সামনেই মহড়া দিয়ে পরপর দ্ইুটি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়ে জনমনে আতংক সৃষ্ঠি করে।

এরপরই নির্বাচনী আচরণবিধি লংঘন করে আওয়ামী লীগের সন্ত্রাসীরা মটর সাইকেলের মহড়া দিয়ে উস্কানিমূলক শ্লোগান দিতে থাকে। এখানেও পুলিশ ছিল নির্লিপ্ত। বিএনপি অফিসের সামনে পুলিশ বিনা উস্কানীতে বুদ্ধিজীবী দিবসে যোগ দিতে আসা বিএনপি নেতা-কর্মীদের ওপর চড়াও হয়ে টিয়ারশেল নিক্ষেপ ও গুলি বর্ষণ করে। স্প্রিন্টারবিদ্ধ হয় এবং ১০/১২ জন কর্মী। বিএনপি প্রার্থী বেগম রুমানা মাহমুদ বলেন, তিনি নিজে নেতা-কর্মীদের সাথে নিয়ে বিএনপি অফিসে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসে বিএনপির আলোচনা সভায় যোগ দিতে যাওয়ার পথে পুলিশ এলোপাতারিভাবে আমাদের ওপর টিয়ারশেল ও গুলিবর্ষণ করতে থাকে। পুলিশের টিয়ারশেল ও গুলির স্প্রিন্টার আমার শরীরে লাগলে আমি মাটি পড়ে যাই। পুলিশের গুলিতে মহিলা দলের নেত্রী মেরী খাতুন ও জয় নামে এক যুবদল কর্মীর চোখ নষ্ট হয়ে গেছে। এ সময় আরো আহত হয় ২০/২৫ জন।

গ্রেফতার করা হয়েছে ৭ জনকে। তিনি বলেন, প্রতিনিয়ত সিরাজগঞ্জের ৬টি নির্বাচনী আসন থেকে সরকারের মদদে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী ও আওয়ামী সন্ত্রাসীরা এক হয়ে ধানের শীষের প্রার্থী সমর্থকদের ওপর বেপরোয়া হামলা ,হুমকি ধামকি,গ্রেফতার,নির্যাতনের খবর আসছে। তাই নির্বাচনে শান্তিপুর্ন ও সমতল ভুমি নিশ্চিত করার জন্য সিরাজগঞ্জ পুলিশ সুপার টুটুল চক্রবর্তী,সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ দাউদ এবং ওসি (তদন্ড) রফিকুল ইসলামকে প্রত্যাহারের দাবী জানাচ্ছি এবং নির্বাচনী সহিংসতা ও সন্ত্রাস দমনে এখনই ম্যাজিস্ট্রেসি ক্ষমতা দিয়ে সেনা মোতায়নের দাবী জানাচ্ছি।

এ সময় অন্যান্য মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্ঠা ও সিরাজগঞ্জ-৩ আসনের প্রার্থী আব্দুল মান্নান তালুকদার, জেলা বিএনপির সাধার সম্পাদক সাইদুর রহমান বাচ্চু,সহ সভাপতি মজিবর রহমান লেবু, আজিজুর রহমান দুলাল, নাজমুল হাসান তালুকদার রানা, আব্দুল কাদের, যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক নুর কায়েম সবুজ, হারুন অর রশিদ খান হাসান, রকিবুল হাসান রতন, অমর কৃষ্ণদাস, মুন্সি জাহিদ আলম, সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাইদ সুইট, জেলা মহিলা দলের সভানেত্রী সুলতানা তালুকদার রীন মির্জা মোস্তফা জামান, আইনজীবী মীর রুহুল আমীন বাবু, রফিক সরকার, ইন্দ্রজিৎ সাহা, নাজমুল হোসেন, জেলা কৃষক দলের আহবায়ক সাইদুল ইসলাম খান আলো, জেলা যুবদলের সভাপতি মির্জা আব্দুল জব্বার বাবু, সাধারণ সম্পাদক মোরাদুজ্জমান, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি আনোয়ার হোসেন রাজেশ, সাংগঠনিক সম্পাদক মিলন হক রঞ্জু, জেলা ছাত্রদলের সভাপতি জুনায়েদ হোসেন সবুজ, সাধারণ সম্পাদক সেরাজুল ইসলাম সহ আরো অনেককে।

সংবাদ পড়ুন, লাইক দিন এবং শেয়ার করুন

Comments

comments

About আওয়াজ অনলাইন

x

Check Also

সিরাজগঞ্জে বিরল প্রজাতির মদন টাক পাখি উদ্ধার 

হুমায়ুন কবির সুমন, সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি: সিরাজগঞ্জে বিরল প্রজাতির একটি মদন টাক পাখি উদ্ধার করা হয়েছে। মঙ্গলবার ...

error: Content is protected !!