JavaScript must be enabled in order for you to see "WP Copy Data Protect" effect. However, it seems JavaScript is either disabled or not supported by your browser. To see full result of "WP Copy Data Protector", enable JavaScript by changing your browser options, then try again.
সংবাদ শিরোনাম:

মানিকগঞ্জে মনির হত্যা মামলায় ৪ জনের মৃত্যুদণ্ড ও ১ জনের যাবজ্জীবন রায় কার্যকর

মোঃ জাহাঙ্গীর আলম, মানিকগঞ্জ জেলা প্রতিনিধিঃ আলোচিত মনির হত্যা মামলায় চারজনকে মৃত্যুদন্ডসহ ২০ হাজার টাকা করে জরিমানা ও একজনের যাবজ্জীবন কারাদন্ড দেয়া হয়েছে। সোমবার (২২-১০-১৮) দুপুরে জেলা ও দায়রা জজ মো: শহিদুল আলম ঝিনুক এই রায় প্রদান করেন।
মৃত্যুদন্ড প্রাপ্ত আসামীরা হলেন- মানিকগঞ্জের শিবালয় উপজেলার শিমুলিয়া গ্রামের বাদশা মিয়া, সিংগাইর উপজেলার ভাটিরচর গ্রামের লাল মিয়া, গোপালগঞ্জের কোটালিপাড়ার কোশলা গ্রামের আজগর চৌধুরী ও দিনাজপুরের আওলিয়াপুর গ্রামের আনোয়ার হোসেন।
এছাড়া মামলার পলাতক আরেক আসামী নারায়নগঞ্জের কালিয়ারচর হাজিরটেক গ্রামের আকতার হোসেন জামালকে যাবজ্জীবন কারাদন্ডসহ ৫০ হাজার টাকা অর্থদন্ড অনাদায়ে আরো একবছরের সশ্রম কারাদন্ডে দন্ডিত করা হয়।
মৃত্যুদন্ড চার আসামীর মধ্যে আনোয়ার ও আজগর পলাতক রয়েছেন। মামলার অপর তিন আসামী শুকুর আলী, আলম ও মাসুদকে বেকসুর খালাস দেওয়া হয়েছে।
হাত, পা, কোমর ও গলায় পাথর বেঁধে নদীতে ফেলে হত্যা করা হয়েছিল মানিকগঞ্জের কলেজ ছাত্র মনির হোসেনকে।
সূত্রে জানা গেছে, ২০১৫ সালের ১০ সেপ্টম্বর মানিকগঞ্জের শিবালয় উপজেলার শিমুলিয়া গ্রামের প্রবাসী পরোশ আলীর একমাত্র ছেলে মানিকগঞ্জ খান বাহাদুর আওলাদ হোসেন কলেজের একাদশ শ্রেনীর ছাত্র মনির হোসেন একই এলাকার বাদশা মিয়া সেনাবাহীনিতে চাকুরী দেয়ার কথা বলে সাভার নিয়ে যায়। এর পর বাদশার সাথে সেখানে যোগ হয় আকতার হোসেন জামাল ওরফে কামাল, মো. আজগর চৌধুরী ,মো. শুকুর আলী,মো. লাল মিয়া,মো. আনোয়ার হোসেন, মো. মাসুদ ও মো. আলম। তাদের সবার উদ্দেশ্য ছিল মনিরকে হত্যা করবে এবং তার পরিবারের কাছে মোটা অংকের মুক্তিপন দাবিও করবে।
সাভার নিয়েই ওই দিন রাতেই পুর্বপরিকল্পনা অনুযায়ী সকলে মিলে মনিরের হাত-পা, চোখ-মুখ ও কোমড় রসি দিয়ে বেধে একটি নৌকায় উঠায়। পরে রানা প্লাজার ধ্বংসস্তুপের পাথর দিয়ে মনিরকে রসির সঙ্গে বাধা হয়।
এর পর মোবাইলে মনিরের মায়ের কাছে ২০ লাখ টাকা মুক্তিপন দাবি করে হত্যাকারীরা। এর আগেই মোবাইলে রেকর্ড করা হয় মনিরের কথা ও কান্নার শব্দ। ফোনে মনিরকে নির্যাতনের আওয়াজ শোনার পর মনিরের মা মালেকা বেগম দিশেহারা হয়ে পড়েন। মুক্তিপনের টাকা দিতেও রাজি হন। কিন্ত তার আগেই সর্বনাশ হয়ে যায়। ওই দিন রাতের কোন এক সময় নৌকায় করে সাভারের নামা বাজার থেকে হেমায়েতপুর-সিংগাইর সড়কের শহীদ রফিক সেতুর কাছে নিয়ে নদীতে নিক্ষেপ করে মনিরকে হত্যা করা হয়।
সংবাদ পড়ুন, লাইক দিন এবং শেয়ার করুন

Comments

comments

About আওয়াজ অনলাইন

x

Check Also

শ্রীপুরে আগুন জ্বালিয়ে সড়ক অবরোধ শিক্ষার্থীদের

শ্রীপুর ,গাজীপুর প্রতিনিধি আব্দুর রউফ রুবেল : গাজীপুর জেলার শ্রীপুর উপজেলার মাওনা বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ে ...

error: Content is protected !!