হোম » প্রধান সংবাদ » বিশ্বনাথে যৌতুক না দেয়ায় দুধের শিশু নিয়ে ঘরছাড়া গৃহবধু!

বিশ্বনাথে যৌতুক না দেয়ায় দুধের শিশু নিয়ে ঘরছাড়া গৃহবধু!

বিশ্বনাথ প্রতিনিধি : সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলায় যৌতুকের কারণে বিয়ের এক বছরের মাথায় সদ্য ভূমিষ্ট শিশু নিয়ে ঘর ছাড়তে হয়েছে এক গৃহবধুর। তার নাম সাফিয়া বেগম (২৭)। তিনি উপজেলার দশঘর ইউনিয়নের বাইশঘর (বর্তমান অবস্থান লামা লহরী) গ্রামের নেফুর আলীর স্ত্রী। গেল শনিবার (১২ জুলাই) সন্ধ্যায় নবজাতক শিশুকে দেখতে মেয়েটির ভাই ও মা তার বাড়িতে গেলে যৌতুকের টাকার জন্যে তাদের উপর হামলা চালায় তার স্বামী যৌতুকলোভী স্বামী নেফুর আলীগং। তাদের জিম্মি করে রাখে তারা। পরে খবর পেয়ে রাত ১০টায় মেয়ের স্বজনেরা আহত অবস্থায় উদ্ধার করেন তাদের।
সূত্র জানায়, ২০১৯ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর উপজেলার বাইশঘর গ্রামের মৃত বুজুর আলী ছেলে নেফুর আলীর সাথে দেওকলস ইউনিয়নের মৃত সুনা উল্লাহর মেয়ে সাফিয়া বেগমের বিয়ে হয় পারিবারিক ভাবে। বিয়ের কিছুদিন পর থেকে যৌতুকের দাবিতে তার ওপর নেমে আসে অমানুষিক নির্যাতন। বিভিন্ন সময়ে টাকা দিলেও আরও এনে দিতে চাপ প্রয়োগ করতো। না দিলে কারণে-অকারণে উঠতে-বসতে নির্যাতন চালানো হতো তার ওপর।
এ নিয়ে স্থানীয় ইউনিয়ন চেয়ারম্যান-মুরুব্বিসহ একাধিক বার আপোষ-মিমাংসাও করেন। এরই মাঝে গেল ৫ জুলাই সাফিয়ার একটি মেয়ে সন্তান জন্ম দেয়। নবজাতক শিশুকে দেখতে ১২ জুলাই সাফিয়ার বাড়িতে যান তার বড় ভাই গেদু মিয়া ও মা ফাতেমা বেগম। এসময় নেফুর আলী তাদের কাছে সন্তানজন্মকালীন সময়ের ব্যয়ভার হিসেবে ৩০ হাজার টাকা যৌতুক দাবী করে। ‘টাকার বিষয়ে এখন কিছু বলা যাবে না’ এ কথা বলা মাত্রই নেফুর আলী (৪৫), তার ভাই জুনেদ (৩০), লুৎফুর (৩৫) ও তাদের ভাগ্নে ফয়ছল (৩০) তাদের উপর হামলা চালায়। মারপিট করে আটকে রাখা হয় সবাইকে। পরে স্থানীয় যুবলীগ নেতা কামরুজ্জামান সেবুল ও সাফিয়ার গ্রামের তারেক আহমদ দুলনসহ মুরুব্বিরা গিয়ে তাদের উদ্ধার করে।
নির্যাতিতা গৃহবধু সাফিয়া জানান, অকথ্য নির্যাতন সহ্য করে এক বছর পার করেছি স্বামীর সংসারে। ভেবে ছিলাম সন্তানের মুখ দেখে হয়তো পরিবর্তন হবে তার। উল্টো নবজাতকের উচিলায়ও টাকা দাবী করে সে। যৌতুকের জন্যই সেদিন আমার মা-ভাইসহ আমাকে মারধর করে তারা।
অভিযোগ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে সাফিয়ার স্বামী নেফুর আলী কথা বলতে অপারগতা প্রকাশ করে সাংবাদিকদের বলেন, আমি ব্যস্ত আছি, কথা বলতে পারব না।এ বিষয়ে কথা হলে বিশ্বনাথ পুলিশ স্টেশনের অফিসার ইন-চার্জ শামীম মুসা সাংবাদিকদের  বলেন, এ সংক্রান্ত কোন অভিযোগ এখনই পাইনি। অভিযোগ পেলে অবশ্যই আইনি প্রক্রিয়ায় ব্যবস্থা নেয়া হবে।
শেয়ার করুন আপনার পছন্দের সোশ্যাল মিডিয়ায়
error: Content is protected !!