হোম » প্রধান সংবাদ » নাটোরের নলডাঙ্গায় ঝুঁকিপূর্ণ পার্শ্ব রাস্তা- দূর্ভোগ চরমে

নাটোরের নলডাঙ্গায় ঝুঁকিপূর্ণ পার্শ্ব রাস্তা- দূর্ভোগ চরমে

মোস্তাফিজুর,নাটোর প্রতিনিধি: নাটোর-আত্রাই-নওঁগা আঞ্চলিক মহা সড়কের কাজের জন্য নলডাঙ্গার মাধনগরে নির্মিত সেতুর কাজ চলছে পুরোদমে। তবে চলাচলের জন্য তৈরীকৃত পার্শ্ব রাস্তার বেহাল দশায় দূর্ভোগ ঝুঁকি নিয়ে চলছে হাজার হাজার মানুষ। যেকোন সময় ঘটতে পারে দূর্ঘটনা। আজ সকালে সরজমিনে গিয়ে দেখা যায় বন্যার পানির কারণে পার্শ্ব রাস্তাটি খানাখন্দ ও কাদায় চলাচলের অনুপযোগী। সাময়িকভাবে রাস্তায় ইট ফেলে মেরামতের চেষ্টা করা হলেও তা অপ্রতুল। সিএনজি, অটো, ভ্যান থেকে যাত্রীরা নেমে পায়ে হেঁটে পার হচ্ছেন। রাস্তার এক পাশে বালির বস্তা দিয়ে বন্যার পানি আটকিয়ে রাখার চেষ্টা করা হয়েছে কিন্তু নিয়মিত পানি বৃদ্ধি ও ঢেউয়ের কারণে কতক্ষণ পানি আটকিয়ে রাখা সম্ভব হবে সে বিষয়ে সন্দিহান এলাকাবাসী।

 এ বিষয়ে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান পিংকি কনষ্ট্রাকশনের ম্যানেজার পরিচয় দিয়ে ইশতিয়ার জানান, পার্শ্ব রাস্তায় সুষ্ঠ ভাবে চলাচলের জন্য আমরা চেষ্টা করছি ইতিমধ্যে ইট ফেলা হয়েছে, রাস্তার পাশ দিয়ে বালির বস্তা দেয়া হয়েছে। আর যেহেতু এত বড় কাজ হচ্ছে সেখানে একটু জনদূর্ভোগ হতেই পারে। এ সময় সড়ক ও জনপথ বিভাগের কার্য সহকারী মোজ্জাফর হোসেন বলেন, এই রাস্তা দিয়ে ট্রাক চলাচলের নিয়ম নেই অথচ ১০ থেকে ২০ টন ওজনের ট্রাক চলছে এজন্য রাস্তা বারবার ঠিক করার পরও নষ্ট হয়ে যাচ্ছে।

সমস্যা যেটিই হোক জনদূর্ভোগ দূর করার উপায় তো বের করতে হবে। এদিকে পিংকি কনষ্ট্রাকশনের সত্বাধিকারী আশফাকুল ইসলাম কে ফোন করলে তিনি বলেন, এই কাজ আমি করছি না। কেউ হয়ত ইচ্ছা করে আমার নাম বলেছে। তবে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সেতুটির কাজ করছে নাটোরের সরকার কনষ্ট্রাকশন। সরকার কনষ্ট্রাকশনের সত্বাধিকারী সুজিত সরকার জানান, বিষয়টি তিনি জানেন এবং দ্রুত সমাধানের ব্যবস্থা করা হচ্ছে। কোন ভাবেই জন দূর্ভোগ হতে দেয়া হবে না।

এ ব্যাপারে নাটোরের সড়ক ও জনপদ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী নওয়াজিস রহমান বিশ্বাসের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, বিষয়টি সম্পর্কে আমি জানি। আসলে নরম মাটি হবার কারণে বারবার মাটি দেবে যাচ্ছে এবং চলাচলের প্রতিবন্ধকতা তৈরী হচ্ছে। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ইতিমধ্যে পার্শ্ব সড়কের জন্য বরাদ্ধকৃত টাকার বেশি খরচ করে ফেলেছে। তারপরও আমি জনদূর্ভোগ যেন না হয় সেজন্য নির্দেশনা দিয়েছি।

এই রাস্তায় চলাচলকারী যাত্রীরা জানান, এত টাকার কাজ করছে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান অথচ তারা রাস্তাটি ঠিক করছে না কেন। কোন দূর্ঘটনা ঘটে গেলে সে দায়ভার কে নেবে।

শেয়ার করুন আপনার পছন্দের সোশ্যাল মিডিয়ায়
error: Content is protected !!