হোম » প্রধান সংবাদ » তালতলীতে সরকারী খাস জমি দখল করে অবৈধ স্থাপনা নিমার্ণ সরকারের কোটি টাকা রাজস্ব বেহাত।

তালতলীতে সরকারী খাস জমি দখল করে অবৈধ স্থাপনা নিমার্ণ সরকারের কোটি টাকা রাজস্ব বেহাত।

বরগুনা প্রতিনিধিঃ বরগুনার তালতলী উপজেলার কচুপাত্রা হাট-বাজারের সরকারী খাস জমি দখল করে প্রভাবশালীরা ৫০টি অবৈধ স্থাপনা নির্মাণ করেছে। ভুমি অফিসের লোকজন প্রভাবশালীদের স্থাপনা নিমার্ণে বাধা দিলেও তারা উল্টো ভুমি অফিসের লোকজনকে জীবন নাশের হুমকি দিচ্ছে। হাটের অধিকাংশ জমি তারা দখল করে নিয়েছে। জমি দখল করে স্থাপনা নিমার্ণ করায় হাট বন্ধের উপক্রম হয়েছে। এতে সরকার প্রতিবছর লক্ষ লক্ষ টাকা রাজস্ব হারাচ্ছে। ওই হাট-বাজারের দুই প্রভাবশালী গ্রাম্য চিকিৎসক রনজিৎ কুমার শাখারী (বৌদ্ধ ডাক্তার) ও চান্দখালী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবু হানিফ মিয়া সরকারী নির্দেশনা উপেক্ষা করে পাকা স্থাপনা নিমার্ণ করেছেন।
কড়াইবাড়িয়া ইউনিয়ন ভুমি অফিস সুত্রে জানাগেছে, ১৯২০ সালে উপজেলার কচুপাত্রা হাট-বাজারের নামে স্থানীয়রা দুই একর জমি দানপত্র করেন। দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের সাপ্তাহিক জনপ্রিয় এ হাট। প্রতি রবিবার ওইখানে হাট বসে। সরকারী খাস খতিয়ানভুক্ত ওই হাটের জমি স্থানীয় প্রভাবশালীরা অবৈধভাবে দখল করায় ঠিকমত হাট বসতে পারছে না। আস্তে আস্তে ওই হাটের জমি স্থানীয় প্রভাবশালীরা দখল করে অবৈধ স্থাপনা নির্মাণ করেছে। এতে হাটটি এখন নিভু নিভু প্রায়। হাটটিকে নিশ্চিহৃ করে দিয়ে সমুদয় জমি দখলের জন্য একটি প্রভাবশালী মহল উঠেপড়ে লেগেছে এমন অভিযোগ স্থানীয়দের। তারা হাটের জমি দখল করে অবৈধ পাকা স্থাপনা নিমার্ণ করছে।
ওই হাটের দুই প্রভাবশালী গ্রাম্য চিকিৎসক রনজিৎ কুমার শাখারী (বৌদ্ধ ডাক্তার) ও চান্দখালী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবু হানিফ মিয়া সরকারী নির্দেশনা উপেক্ষা করে অন্তত ৩৩ শতাংশ  জমিতে পাকা স্থাপনা নিমার্ণ করেছেন। ভুমি অফিসের লোকজন এসে তাদের পাকা স্থাপনা নিমার্ণে নিষেধাজ্ঞা দিলেও তারা তা মানছে না। বৌদ্ধ ডাক্তার ইতিমধ্যে তিন তলা ভবনের দ্বিতলার কাজ সম্পন্ন করেছেন। হানিফ মাষ্টারের পাকা ভবনের ফাউন্ডেশনের কাজ চলবে। ভুমি অফিসের লোকজন রাজস্ব আদায়ের তাগাদা দিলে প্রভাবশালী ভুমি দখলবাজরা তা দিচ্ছে না। অপরদিকে একটি প্রভাবশালী মহল জমি দখল করে অন্যের কাছে লক্ষ লক্ষ টাকায় পজিশন বিক্রি করছেন।
ওই হাটের সরকারী জমি দখল হওয়ায় সরকার প্রতিবছর অন্তত লক্ষ লক্ষ টাকা রাজস্ব হারাচ্ছে বলে জানান সংশ্লিষ্টরা। গত ৫০ বছরে ওই হাটে অন্তত সরকার কোটি টাকা রাজস্ব হারিয়েছে। স্থানীয়দের অভিযোগ কড়াইবাড়িয়া ইউনিয়ন ভুমি অফিসের লোকজন মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে সরকারী জমিতে পাকা স্থাপনা নিমার্ণের কথা জেনেও তারা তা আমলে নিচ্ছে না। ইউনিয়ন ভুমি অফিস সংশ্লিষ্টরা বলেন, জমি দখল করে অবৈধ পাকা স্থাপনা নির্মাণকারীদের ভবন নিমার্ণে করেছি কিন্তু তারা তা মানছে না। তারা উল্টো আমাদের জীবন নাশের হুমকি দিচ্ছে। প্রভাবশালীদের ভয়ে ওই হাটে ভুমি অফিসের লোকজন পাকা স্থাপনা নিমার্ণে বাঁধা দিতে সাহস পাচ্ছে না।
বৃহস্পতিবার সরেজমিনে গিয়ে দেখাগেছে, হাটের দুইটি স্টল এবং  একটি পাকা সড়ক ছাড়া সমুদয় জমি প্রভাবশালীরা দখল করে ৫০টি স্থাপনা নিমার্ণ করেছে। গ্রাম্য চিকিৎসক রনজিৎ কুমার শাখারী তিনতলা পাকা ভবনের দ্বিতলার কাজ সম্পন্ন এবং আবু হানিফ মিয়া পাকা ভবন নিমার্ণের ফাউন্ডেশনের কাজ করছেন। অনেকে জমি দখল করে টিন শেডের ঘর নিমার্ণ করেছেন।
স্থানীয় মাসুম হাওলাদার, সিদ্দিক তালুকদার ও আশ্রাফ আলী বলেন, কচুপাত্রা হাট নিশ্চিহৃ করে দেয়ার জন্য একটি প্রভাবশালী মহল উঠেপড়ে লেগেছে। তারা হাটের জমি দখল করে অবৈধ স্থাপনা নিমার্ণ করছে। হাটের অধিকাংশ জমি দখল হয়ে গেছে। তারা আরো বলেন, সপ্তাহে হাটের দিনে দোকান পাট এতে বসতে পারে না। হাটটি রক্ষায় অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করে জমি দখল মুক্ত করার জন্য প্রশাসনের কাছে দাবী জানাই।
দ্বিতল পাকা ভবন নির্মাণকারী প্রভাবশালী রনজিৎ কুমার শাখারী (বৌদ্ধ ডাক্তার) ছেলে তাপস কুমার শাখারী বলেন, ভুমি অফিসে জমির ডিসিয়ারের জন্য আবেদন করেছি কিন্তু এখনো পাইনি। তবে অনুমতি ছাড়া সরকারী জমিতে দ্বিতল পাকা ভবন নিমার্ণের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি কোন সমুত্তর দিতে পারেনি।
কড়াইবাড়িয়া ইউনিয়ন ভুমি সহকারী কর্মকতার্ মোঃ সোলায়মান বলেন, কচুপাত্রা হাটের জমি স্থানীয় প্রভাবশালীরা দখল করে স্থাপনা নির্মাণ করছে। ওই হাটে কাউকে স্থাপনা নির্মাণ করতে অনুমতি দেওয়া হয়নি। তারা জোড়করে স্থাপনা নির্মাণ করছে। আমরা নিষেধ করা সত্ত্বেও তারা তা মানছে না। তিনি আরো বলেন, ওই হাটের সরকারী জমি উদ্ধারের জন্য উচ্ছেদ প্রক্রিয়া চলছে।
তালতলী উপজেলা নিবার্হী অফিসার মোঃ আসাদুজ্জামান মিয়া বলেন, ওই হাটে পাকা ভবন নিমার্ণ কাজ বন্ধের জন্য নির্দেশ দেয়া হয়েছে। সরকারী জমিতে কেউ কোন মতেই পাকা ভবন নিমার্ণ করতে পারবে না। কেউ নিমার্ণ করলে সরকারী নির্দেশনা অনুসারে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।
শেয়ার করুন আপনার পছন্দের সোশ্যাল মিডিয়ায়
error: Content is protected !!