হোম » শিক্ষা » বশেমুরবিপ্রবিতে প্রাণিসম্পদ সচিবের কুশপুত্তলিকা দাহ, মন্ত্রণালয় ঘেরাওয়ের হুমকি! 

বশেমুরবিপ্রবিতে প্রাণিসম্পদ সচিবের কুশপুত্তলিকা দাহ, মন্ত্রণালয় ঘেরাওয়ের হুমকি! 

বশেমুরবিপ্রবি (গোপালগঞ্জ) প্রতিনিধি : ‘বাংলাদেশ অ্যানিমেল হাজবেন্ড্রি কাউন্সিল আইন-২০২৩’ প্রণয়নের নীতিগত সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারে দাবিতে চতুর্থ দিনের মতো বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বশেমুরবিপ্রবি) এনিম্যাল সায়েন্স এন্ড ভেটেরিনারি মেডিসিন (এএসভিএম) বিভাগের শিক্ষার্থীরা। এসময় প্রাণিসম্পদ সচিব ড. নাহিদ রশীদের কুশপুত্তলিকা দাহ করা হয়।
রবিবার বেলা ১০.৩০ টার দিকে বিক্ষোভ মিছিলটি বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক ভবনের সামনে থেকে শুরু হয়ে প্রশাসনিক ভবনের সামনে এসে শেষ হয়। বিক্ষোভ মিছিল শেষে একাডেমিক ভবনের সামনে প্রতিবাদ সমাবেশ ও ক্যাম্পাসের মেইন গেটে ১১.৪৫ টায় প্রাণিসম্পদ সচিবের কুশপুত্তলিকা দাহ করা হয়। সমাবেশে এএসভিএম বিভাগের ক্লাস পরীক্ষা বর্জনের ডাক দেওয়ার পাশাপাশি প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় ঘেরাওয়ের হুমকি দেন শিক্ষার্থীরা।
বাংলাদেশ ভেটেরিনারি স্টুডেন্ট ফেডারেশন (বিভিএসএফ) বশেমুরবিপ্রবি শাখার দপ্তর সম্পাদক রুপন ইসলাম শুভ জানান, ”আগামীদিনেও একই ভাবে আমাদের কঠোর কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে। আমরা নাহিদ রশীদের ব্যক্তিস্বার্থে তৈরি করতে চাওয়া মনগড়া সিদ্ধান্তের তীব্র প্রতিবাদ জানাই এবং এই সিদ্ধান্ত প্রতিহত করতে আমরা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভেটেরিনারি বিভাগের সকল শিক্ষার্থী বদ্ধপরিকর”।
এএসভিএম বিভাগের এসিস্ট্যান্ট প্রফেসর ডা. হুর-ই-জান্নাত জ্যোতি বলেন, “সমগ্র বিশ্বে ভেটেরিনারি একটি সমাদৃত পেশা। আমাদের দেশে ১৪ টি ক্যাম্পাস থেকে ভেটেরিনারি গ্রাজুয়েট বের হয়, আর মাত্র দুইটা ক্যাম্পাস থেকে অ্যানিমেল হাজবেন্ড্রি গ্রাজুয়েট বের হয়। এই অল্পকিছু শিক্ষার্থীদের জন্য একটা স্বতন্ত্র কাউন্সিলের কোন প্রয়োজন নেই। আজ হাজবেন্ড্রি কাউন্সিল হলে কাল কম্বাইন্ড কাউন্সিল গঠনেরও দাবি উঠবে। তাই এতগুলো কাউন্সিল না খুলে প্রচলিত ভেটেরিনারি কাউন্সিলকে রি-মডেলিং করা যায়”।
বশেমুরবিপ্রবি ভেট সাইন্স এন্ড এসএইচ ছাত্র সমিতির সাধারণ সম্পাদক তোফায়েল আহমেদ বলেন, “সর্বজনস্বীকৃত ভেটেরিনারি কাউন্সিল আইনকে উপেক্ষা করে একটি স্বার্থান্বেষী মহল শুধুমাত্র ব্যক্তিগত স্বার্থ হাসিলের উদ্দেশ্যে একটি অবৈধ কাউন্সিল গঠনের পায়তারা চালাচ্ছে। যা প্রাণিসম্পদকে আজন্মকাল বিভাজন করার একটি দুরভিসন্ধি ব্যতীত দ্বিতীয় কিছুই নয়। ভেটেরিনারি ছাত্র সমাজ এহেন পরিস্থিতির তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছে”।
প্রসঙ্গত, গত ১৮ ডিসেম্বর অ্যানিমেল হাজবেন্ড্রি কাউন্সিল আইন প্রণয়নের বিষয়ে আইন মন্ত্রণালয়ে নীতিগত সিদ্ধান্ত হয়েছে। যার প্রতিবাদে প্রাণিসম্পদ খাতের বিভিন্ন সংগঠন, প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরসহ ১৪টি বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে মিছিল ও প্রতিবাদ সভা-সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। গত ২৩ ডিসেম্বর ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাগর রুনি মিলনায়তনে একটি সংবাদ সম্মেলনেরও আয়োজন করে বাংলাদেশ ভেটেরিনারি এসোসিয়েশন (বিভিএ)। হাজবেন্ড্রি কাউন্সিল আইনের বিরোধিতা করে বিভিএ নেতারা বলেন, বাংলাদেশ ভেটেরিনারি কাউন্সিল আইন-২০১৯ থাকার পরও নতুন করে অ্যানিমেল হাজবেন্ড্রি কাউন্সিল আইন-২০২৩ প্রণয়ন করছে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়। নতুন এই আইন প্রণয়ন করা হলে প্রাণিসম্পদ বিভাগের কর্মকর্তাদের মধ্যে বিতর্ক সৃষ্টি হবে। এজন্য অ্যানিমেল হাজবেন্ড্রি কাউন্সিল আইনের খসড়া প্রত্যাহারের দাবি জানাচ্ছেন তারা।
error: Content is protected !!