হোম » প্রধান সংবাদ » রাস্তার জন্য বিয়ে হয় না মেয়েদের ধান লাগিয়ে প্রতিবাদ

রাস্তার জন্য বিয়ে হয় না মেয়েদের ধান লাগিয়ে প্রতিবাদ

গোলাম রব্বানী দুলাল,আদমদিঘী উপজেলা প্রতিনিধি : গ্রামের মানুষের আক্ষেপ দেশের সব জায়গায় সবকিছুর উন্নয়ন হলেও আমাদের এই অবহেলিত গ্রামের রাস্তা-ঘাটের কোন উন্নয়ন হয় না। আর যোগাযোগ ব্যবস্থা উন্নত নয় বলে আমাদের জীবন মানও উন্নত হচ্ছে না। আমাদের গ্রামের মেয়েদের সহজে কেউ বিয়ে করতে চায় না কারণ গ্রামের রাস্তা-ঘাট ভালো নয় বলে। বলছিলাম বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলার নসরতপুর ইউনিয়নের বিনাহালী গ্রামের কথা।

যুবকেরা রাস্তায় ধান রোপন করে অভিনব পন্থায় জানালো প্রতিবাদ। আদমদীঘির নসরতপুর ইউনিয়নের বৃহত্তম গ্রাম বিনাহালী। এই গ্রামের ভোটার সংখ্যা প্রায় ২৫০০ জন। গ্রামের ২টি রাস্তার মধ্যে ১টি কাঁচা এবং ১টি পাকা।

কিন্তু আধুনিকতার কোন ছোয়াই আজ পর্যন্ত এই অবহেলিত গ্রামের কোন রাস্তা-ঘাটে স্পর্শ করেনি। সরকার যেখানে গ্রামকে শহরের সুবিধা প্রদান করার অঙ্গিকার করেছে সেখানে এই গ্রামের সকল কিছুতে এখনোও পর্যন্ত উন্নয়নের কোন বালাই নেই।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গ্রামের একমাত্র মাটির রাস্তাটির দীর্ঘদিন থেকেই নেই কোন সংস্কার। আর বর্ষাকালে এ রাস্তার হাটু কাদায় চলাচল খুবই কষ্টসাধ্য। এলাকাবাসী দীর্ঘদিন ধরে এ রাস্তা সংস্কারের দাবি জানালেও কাজ না হওয়ায় এবার তারা রাস্তায় ধানের চারা রোপণ করে নিবর প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

মনের কষ্টে ও দুর্ভোগ থেকে রক্ষার উপায় হিসেবে বুধবার সকালে গ্রামবাসীরা কাঁচা রাস্তায় ধান রোপন করে এই মৌন প্রতিবাদ জানান। অভিনব এই প্রতিবাদে অংশ নেন ওই এলাকার বিভিন্ন শ্রেণী পেশার শতাধিক মানুষ। এই হাটু কাঁদার কাঁচা রাস্তাটি দিয়েই গ্রামের শিক্ষার্থীদেরকে স্কুল-কলেজে যেতে হয় এবং জীবিকার তাগিদে বিভিন্ন শ্রেণী পেশার হাজার হাজার মানুষকে প্রতিনিয়ত চলাচল করতে হয়।

যুগের পর যুগ এই গ্রামের মানুষ কষ্ট আর প্রচন্ড দূর্ভোগের মধ্যে দিয়েই জীবন পার করে আসছে। এছাড়াও কৃষকরা তাদের কৃষি পণ্যের নায্যমূল্য থেকে বঞ্চিত হয়ে আসছে। বর্ষাকালে কৃষি পন্যসহ অন্যান্য পন্য পরিবহন করা যেন অসম্ভব এক বিষয়। গ্রামের কোন জরুরী অসুস্থ্য রোগীকে গ্রামের এই মেঠোপথ দিয়ে নিয়ে যাওয়ার সময় আরো বেশি অসুস্থ্য হয়ে পড়ে।

নশরতপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শামসুল হক খন্দকার বলেন, রাস্তাটির সংস্কার কাজের জন্য আবেদন করে চাহিদাপত্র পাঠিয়েছি। বরাদ্দ এলে রাস্তাটি করে দেয়া হবে। উপজেলা প্রকৌশলী সাজেদুর রহমান জানান, রাস্তার বিষয়টি জানা নেই। তবে রাস্তাটি যদি এলজিইডির আওতায় হয় তাহলে জনদুর্ভোগ লাঘবে বিভিন্ন প্রকল্পের মাধ্যমে রাস্তাটি করে দেয়া হবে। আর যদি আওতার বাহিরে হয় তাহলে উপজেলা পরিষদের মাধ্যমে রাস্তাটির সংস্কার কাজ করা হবে।

শেয়ার করুন আপনার পছন্দের সোশ্যাল মিডিয়ায়
error: Content is protected !!