হোম » প্রধান সংবাদ » সুনামগঞ্জে প্রধানমন্ত্রী বরাবর ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মাদরাসা শিক্ষকদের স্মারকলিপি প্রদান

সুনামগঞ্জে প্রধানমন্ত্রী বরাবর ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মাদরাসা শিক্ষকদের স্মারকলিপি প্রদান

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি: প্রকল্প জটিলতায় করোনা মহামারিতেও ৬ মাস যাবৎ বেতন-ভাতা না পেয়ে সুনামগঞ্জে- জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করেছেন ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সুনামগঞ্জ জেলার দারুল আরকাম মাদরাসা শিক্ষক সমিতির দায়িত্বশীলরা।

 

সোমবার (৬ জুলাই) শিক্ষকদের কেন্দ্রীয় কমিটি দারুল আরকাম শিক্ষক কল্যাণ সমিতি বাংলাদেশের পূর্ব নির্ধারিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে ৬ দফা দাবিতে এই স্মারকলিপি প্রদান করেন জেলা শিক্ষক সমিতির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আব্দুল হক,সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রাহমান, প্রচার সম্পাদক জাকারিয়া মাহবুব হুসাইন,সহ প্রচার সম্পাদক শহিদুল ইসলাম, সদস্য এনামুল হক,খুবাইব আহমদ,আবু নাঈম প্রমুখ।

 

স্মারকলিপিতে বলা হয়, ২০১৪ সালের ৩০ ডিসেম্বর একনেক সভায় মসজিদ ভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা কার্যক্রম প্রকল্প (৬ষ্ঠ পর্যায়) অনুমোদনকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ মর্মে নির্দেশনা প্রদান করেন যে, দেশের যে সকল এলাকায় স্কুল নেই সেখানে এ প্রকল্পের মসজিদভিত্তিক শিক্ষার পাশাপাশি প্রাথমিক শিক্ষা কর্যক্রম যেন অন্তর্ভুক্ত করার চিন্তা-ভাবনা করা হয়।

 

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার আলোকে ২০১৭ সালে বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষার মাধ্যমে ইসলামিক ফাউন্ডেশন দেশের প্রতি উপজেলায় উক্ত প্রকল্পের (৬ষ্ঠ পর্যায়) অধীন ১ম সংশোধনীর মাধ্যমে ‘দারুল আরকাম’ নামে ১০১০ টি মাদরাসা প্রতিষ্ঠা করে। মাদরাসাগুলোর প্রতিষ্ঠাতা হিসেবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নাম উল্লেখ করা হয়। ২০১৮ সালে ১০১০ জন ক্বওমী ও ১০১০ জন আলিয়া মাদরাসার সনদদারী আলেম নিয়োগের মাধ্যমে এসব প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম শুরু হয়।

 

ক্বওমী সনদের স্বীকৃতির পর এইটাই প্রথম ক্বওমী আলেমদের সরকারি নিয়োগ! শুরুতে ইফার নিজস্ব সিলেবাসে ৩য় শ্রেণী পর্যন্ত পাঠদান শুরু হলেও ২০১৯ সালে এসব মাদরাসা ৫ম শ্রেণীতে উন্নিত করা হয়। গত ৩১ ডিসেম্বর প্রকল্পের মেয়াদ শেষ হলেও ধর্ম-মন্ত্রণালয়ের বিশেষ চাহিদায় প্রকল্পের কার্যক্রম চলমান রাখা হয়। কিন্তু গত ১১ মে মসজিদভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা কার্যক্রম প্রকল্পটি পাশ হলেও প্রকল্প থেকে দারুল আরকামকে বাদ দেওয়া হয়।

 

এতে ২ লক্ষাধিক শিক্ষার্থীর ভবিষ্যৎ যেমন অন্ধকারে তেমনি ২ হাজার আলেম শিক্ষক বেতনহীন মানবেতর জীবন যাপন করছেন।স্মারকলিপিতে দারুল আরকাম মাদরাসা শিক্ষকদের দুর্দশা ও হতাশার কথা উল্লেখ করে- প্রকল্প জটিলতা নিরসন করে আসন্ন কুরবানি ঈদের আগে বকেয়া বেতনভাতা প্রদান। শিক্ষকদের নিয়মিত জনবল হিসাবে উল্লেখ করে স্কেল ভিত্তিক বেতন-ভাত প্রদান সহ ৬ দাবিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জরুরি হস্তক্ষেপ কামনা করা হয়।##

শেয়ার করুন আপনার পছন্দের সোশ্যাল মিডিয়ায়
error: Content is protected !!