ভৈরব পৌরসভা নির্বাচনের ফলাফল ঘোষনা, বিপুল ভোটে নৌকার জয়।।

এম আর ওয়াসিম, ভৈরব (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ কিশোরগঞ্জের ভৈরবে গতকাল ২৮ ফেব্রুয়ারী ৫ম ধাপে ৩৫ টি কেন্দ্রে পৌর নির্বাচন ভোট গ্রহন সম্পন্ন। ভৈরব উপজেলা রিটার্নিং অফিসের আয়োজনে গতকাল উপজেলা মিলনায়তন কক্ষে বেসরকারী ভাবে নির্বাচনী ফলাফল ঘোষনা করেন রিটার্নিং অফিসার ও কিশোরগঞ্জ নির্বাচন কর্মকর্তা আশরাফুল ইসলাম।
ফলাফল ঘোষনার সময় উপস্থিত ছিলেন ভৈরব উপজেলা সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা প্রলয় কুমার সাহা, উপজেলা প্রকৌশলী আবু ইউসুফ, করিমগঞ্জের উপজেলা নির্বাচন অফিসার ফরিদ আহমেদ, ভৈরব উপজেলা নির্বাচন অফিস সহকারী জাহিদ হাসান ও ডাটা এন্ট্রি অপারেটর নজরুল ইসলাম প্রমুখ।
নির্বাচনে উৎসব মুখর পরিবেশে চলে ভোট গ্রহণ। মেয়র পদে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ইফতেখার হোসেন বেণু ৩৭ হাজার ৯শ ৪৯ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন।  প্রতিদ্বন্দী নিকটতম প্রার্থী বিএনপি  হাজি মোঃ শাহিন পেয়েছেন ৯ হাজার ৬শ ৯০ ভোট। স্বতন্ত্র প্রার্থী আব্দুল্লাহ আল মামুন মোবাইল প্রতীকে পেয়েছেন ৪৮৯২ ভোট।
নির্বাচনে বেলা অনুমান টার দিকে আমলা পাড়া কেন্দ্রে কাউন্সিলর প্রার্থী শিমুলের সমর্থকদের অনিময় আর অত্যাচারে কাউন্সিলর প্রার্থী হাজী মোঃ সুজন, লোকমান সরকার ও সজীব আহমেদ নির্বাচন ভয়কট করে এবং রিটার্নিং অফিসারের নিকট আমলা পাড়া কেন্দ্র পুবরায় কাউন্সিলর নির্বাচনের জন্য লিখিত আবেদন করে। এসময় উভয় পক্ষের মাঝে  ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ লাঠিচার্জ ও ৩ রাউন্ড রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।
বেসরকারী ভাবে কাউন্সিলর পদে বিজয়ীরা হলেন,১নং ওর্য়াডে আল-আমিন সৈকত, ২নং ওর্য়াডে দ্বীন ইসলাম, ৩নং ওর্য়াডে মমিনুল হক রাজু, ৪নং ওর্য়াডে শহিদুল ইসলাম  শিমুল, ৫নং ওর্য়াডে আলহাজ্ব ফজলু মিয়া, ৬নং ওর্য়াডে মোশারফ হোসেন মিন্টু,৭নং ওর্য়াডে মোহাম্মদ আলী সোহাগ মিয়া, ৮নং ওর্য়াডে হাবিবুল্লাহ নিয়াজ, ৯নং ওর্য়াডে হাজী মো. মোমেন, ১০নং ওর্য়াডে হাজী মনির হোসেন, ১১নং ওর্য়াডে মো.মানিক মিয়া ও ১২নং ওর্য়াডে ইব্রাহীম মিয়া।
সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর হিসেবে ১,২ ও ৩ নং ওয়ার্ড আছমা বেগম, ৪,৫ ও ৬ নং রোজী ইসলাম, ৭,৮ ও ৯ নং ওয়ার্ডে শামিমা পারভেজ এবং ১০,১১ ও ১২ নং ওয়ার্ডে মৌসুনা রহমান বেলা নির্বাচিত হয়েছেন।
নির্বাচনে সকাল ৮টা থেকেই চোখে পড়ে ভোটারদের উপচে পড়া ভিড় এবং  বিকাল ৪টা পর্যন্ত একটানা ভোট গ্রহণ।  ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট গ্রহণে কোন প্রকার জাল ভোট দেয়ার সুযোগ না থাকায় ভোটারদের মাঝে ছিল আনন্দের হাসি। ভৈরবে প্রথমবারের ইভিএমের মাধ্যমে অবাধ, সুষ্ঠু নিরপেক্ষ নির্বাচনে ভোটারদের নিরাপত্তায় বিজিবি, র‌্যাব ও পুলিশ ষ্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে মাঠে ছিল। এছাড়া ও প্রতিটি ওয়ার্ডে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের মাধ্যমে মোবাইল টিম মাঠে কাজ করেছে।