হোম » প্রধান সংবাদ » শরণখোলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তার  অনিয়ম-দুর্নীতির বিরুদ্ধে শরণখোলা উপজেলায় মানববন্ধন অনুষ্ঠিত

শরণখোলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তার  অনিয়ম-দুর্নীতির বিরুদ্ধে শরণখোলা উপজেলায় মানববন্ধন অনুষ্ঠিত

নাজমুল ইসলাম সবুজঃঅফিস চলাকালীন রোগীদের কাছ থেকে ৩৫০ টাকা করে ফি আদায়, অপ্রয়োজনীয় পরীক্ষা দিয়ে বেসরকারি প্যাথলজি থেকে ৬০ ভাগ কমিশন গ্রহণ এমনকি জন্মনিবন্ধন, প্রতিবন্ধী, গর্ভকালীন সনদসহ বিভিন্ন প্রত্যায়নপত্রে সই করাতেও টাকা দিতে হয় তাকে। এ ছাড়াও অসংখ্য অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ রয়েছে বাগেরহাটের শরণখোলা উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. জামাল মিয়া শোভনের বিরুদ্ধে।এসব সংকটের সুষ্ঠু সমাধানের দাবিতে আন্দোলনে নেমেছে শরণখোলাবাসী।
(০৮ অক্টোবর) রোজ মঙ্গলবার শরণখোলা উপজেলা পাঁচ রাস্তার মোড়ে সকাল ১০ টায় আদর্শ মানবকল্যাণ সোসাইটির উদ্যোগ মানববন্ধন ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত। সমাবেশে বক্তরা শরণখোলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অনিয়ম-দুর্নীতির কথা তুলে ধরেন।শরণখোলায় স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. জামাল মিয়া শোভন প্রায় ৯ মাস আগে যোগদান করেন। তখন থেকে তার বিরুদ্ধে একের পর এক অভিযোগ উঠে আসে।
দীর্ঘদিন ধরে শরণখোলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রোগীরা চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। শরণখোলা ১লক্ষের অধিক লোকের জন্য চিকিৎসার জন্য ২৫ জন ডাক্তার থাকার কথা থাকলেও রয়েছে ২ জন। তার মধ্যে স্বাস্থ্য কর্মকর্তার এমন কর্মকাণ্ডে মানুষ আরো অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে।
রায়েন্দা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান মিলন জানান, তার পরিষদে শতাাধিক প্রতিবন্ধী ও গর্ভবতী মায়েদের তালিকা রয়েছে। তাদের সনদ সাক্ষর করাতে ডা. জামাল মিয়া শোভন প্রত্যেকের কাছে দু-তিন শ করে টাকা দাবি করেন। কোনো মানুষ হাসপাতালে গিয়ে তার কাছ থেকে সেবা পাচ্ছে না। তা ছাড়া চিকিৎসক কম থাকায় মানুষ আরো দুর্ভোগে পড়ছে। এতে সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হচ্ছে। তাই দ্রুত চিকিৎসক সংকট নিরসন ও অসাধু স্বাস্থ্য কর্মকর্তার অপসারণ দাবি করেন তিনি।তবে, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্তকর্তা ডা. জামাল মিয়া শোভন তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, হাসপাতালে মাত্র দুজন ডাক্তার দিয়ে কোনোভাবেই মানুষের কাঙ্ক্ষিত সেবা দেওয়া সম্ভব না।
শেয়ার করুন আপনার পছন্দের সোশ্যাল মিডিয়ায়
error: Content is protected !!