হোম » প্রধান সংবাদ » দূর্নীতির অভিযোগে পরীক্ষা স্থগীতের জন জেলা প্রসাশকের কাছে লিখিত অভিযোগ আবেদনকারীদের

দূর্নীতির অভিযোগে পরীক্ষা স্থগীতের জন জেলা প্রসাশকের কাছে লিখিত অভিযোগ আবেদনকারীদের

রবিউল হাসান লায়ন,জামালপুর: জামালপুর পৌরসভার তিরুথা সত্যপীর উচ্চ বিদ্যালয়ে নৈশ প্রহরী নিয়োগে নানা অনিয়মের অভিযোগ এনে পরীক্ষা স্থগিতের জন্য জেলা প্রসাশকের কাছে লিখিত অভিযোগ করেছে উক্ত পদে আবেদনকারীরা। জানা যায়, গত ১৮ আগষ্ট দৈনিক পত্রিকার মাধ্যমে তিরুথা সত্যপীর উচ্চ বিদ্যালয়ের নৈশ প্রহরী পদে আগ্রহী প্রার্থীদের নিকট থেকে আবেদনপত্র আহবান করেন স্কুল কর্তৃপক্ষ। সে অনুযায়ী মোট ৯ জন র্প্রাথী উক্ত পদে আবেদন করে। আবেদনের পর হতেই ১ জন বাদে বাকীদের পরীক্ষায় অংশগ্রহনের জন্য না করে আসছেন বলে অভিযোগ করেন কয়েকজন আবেদনকারী।
এর মাঝেই গত ১৩ তারিখে জামালপুর সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে উক্ত পদে আবেদনকারীদের পরীক্ষা গ্রহনের কথা ছিলো। কিন্তু অনিবার্য কারণ বষত সে পরীক্ষা স্থগিত করে নিয়োগ কমিটি। এরপর আবেদনকারীরা বিষয়টি নিয়ে নানা ভাবে দৌড় যাপ করতে থাকলে জানতে পারে উজ্জল নামের এক আবেদনকারীর নিকট হতে তিরুথা মোড়ের জুয়েল ডা. এর মাধ্যমে মোটা অংকের টাকা গ্রহন করে নিয়োগ কমিটি।এরপর বিষয়টি জানাজানি হলে দুর্নীতির বিষয়ে ফেসবুকে স্টেটাস দেন ইকরামুল ইসলাম আবু। পরে স্টেটাসটির বিষয়ে স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি গোলাম ফরিদ আজাদ তার বিরুদ্ধে আইসিটি আইনে মামলা করেন বলে জানান আবু।
আবেদনরকারীরা অভিযোগ করেন এত সব কিছুর পরও তাদের মনোনিত প্রার্থীকে নিয়োগ দেওয়ার জন্য আবারও আগামী ২০ তারিখ নিয়োগ পরীক্ষার দিন নির্ধারণ করে নিয়োগ কমিটি। মনোনীত উজ্জলরে চাচা ইয়াকুব আলী বলেন, ১২ শতাংশ জমি ও গরু ছাগল বিক্রি করে জুয়েল ডা. সুজা মাষ্টারের মাধ্যমে ৬ লাখ টাকা দিয়েছে। আমাদেরও সাথে নেয়নি। তবে ১২ শতাংশ জমি বিক্রির কথা শিকার করেন উজ্জলের বাবা মজনু মিয়া।এসব নানা দৃর্নীনিত কথা উল্লেখ পূর্বক ৫ জন আবেদনকারীর সাক্ষরীত একটি অভিযোগপত্র জেলা প্রশাসকের নিকট দাখিল করে আবেদন কারীরা। এসব বিষয়ে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বক্তব্য নিতে বিদ্যালয়ে গেলে তাকে পাওয়া যায় নি।এমন অবস্থায় আবেদন কারীদের দাবি যাতে বর্তমান পরীক্ষা স্থগিত করে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে উক্ত পরীক্ষা গ্রহন করা হয়।
শেয়ার করুন আপনার পছন্দের সোশ্যাল মিডিয়ায়
error: Content is protected !!