হোম » সারাদেশ » লোডশেডিংয়ে সিরাজগঞ্জে তাঁত শিল্পে ধস, উৎপাদন কমেছে অর্ধেকেরও বেশি

লোডশেডিংয়ে সিরাজগঞ্জে তাঁত শিল্পে ধস, উৎপাদন কমেছে অর্ধেকেরও বেশি

হুমায়ুন কবির সুমন, সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি : তাঁত পল্লী হিসেবে পরিচিত যমুনা পাড়ের জেলা সিরাজগঞ্জ। এ জেলায় চাহিদা মতো বিদ্যুৎ সরবরাহ না থাকায় অধিকাংশ তাঁত কারখানা বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়েছে। ঘন ঘন লোডশেডিংয়ে জেলার তাঁত শিল্পে উৎপাদন কমেছে অর্ধেকেরও বেশি। কারখানার মালিকেরা ডিজেল-চালিত জেনারেটরের সাহায্যে তাঁত কারখানা সচল রাখার চেষ্টা করছেন। কিন্তু ডিজেলের দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় কারখানা সচল রাখা সম্ভব হচ্ছে না। লোডশেডিংয়ের ফলে থ্রি-পিচ, লুঙ্গি, শাড়ি ও গামছা তৈরীতে অতিরিক্ত টাকা ব্যয় করতে হচ্ছে।
জানা যায়, জেলার ৯টি উপজেলায় প্রায় ১ লাখ ২৫ হাজার তাঁত রয়েছে। এই তাঁত কারখানায় সুতা তৈরি, সুতায় রং দেওয়া, সুতা শুকানো ও কাপড় উৎপাদনের জন্য প্রতি তাঁতে ২-৩ জন শ্রমিকের প্রয়োজন। এতে মালিক ও শ্রমিক মিলে প্রায় সাড়ে ৩ লাখ মানুষ এ শিল্পের সাথে জড়িত রয়েছে। এই জেলার উৎপাদিত থ্রি-পিচ, গামছা, লুঙ্গি ও শাড়ি দেশের বিভিন্ন হাট-বাজারে বিক্রি হয়।  সপ্তাহে দুইদিন উল্লাপাড়া, বেলকুচি, শাহজাদপুর, এনায়েতপুর ও পাঁচিল বাজারে কাপড়ের হাট বসে। এই হাটে জেলাসহ ও বিভিন্ন স্থানের পাইকারীরা আসেন। দেশের চাহিদা মিটিয়ে এই কাপড় বিদেশেও রপ্তানি হয়। কিন্তু তাঁত পল্লী হিসেবে পরিচিত জেলায় চাহিদা মতো বিদ্যুৎ সরবরাহ না থাকায় অধিকাংশ তাঁত কারখানা বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়েছে। লোডশেডিংয়ের কারণে আগে যেখানে ১০ জন শ্রমিক কাজ করতো বর্তমানে ৩ জন শ্রমিক কাজ করছে। এতে উৎপাদন কম হচ্ছে। আবার যতটুকু উৎপাদিত হচ্ছে, সেগুলো হাট-বাজারে বিক্রি হচ্ছে না। যে কারণে বাধ্য হয়ে অনেকে তাঁত কারখানা বন্ধ রাখছেন।

শাহজাদপুরের দ্বারিয়াপুর এলাকার শাড়ি তৈরীর শ্রমিক জুবায়ের হোসেন জানান, দিনে তিন-চারটি শাড়ি তৈরি করা যেতো। লোডশেডিংয়ের কারণে এখন সারা দিনে দুটি শাড়ি তৈরি করা যায় না।  বেলকুচির মুকন্দগাতী গ্রামের তাঁত শ্রমিক, সুমন, আসলাম ও পলাশ সরকার বলেন, আগে একজন শ্রমিক সপ্তাহে তিন-চার হাজার টাকার কাজ করতো। এখন ১ হাজার থেকে দেড় হাজার টাকার কাজ করা হচ্ছে। ঘন ঘন বিদ্যুৎ আসা-যাওয়ার কারনে দিনে ও রাতে বেকার বসে থাকতে হচ্ছে।

চন্দনগাঁতি গ্রামের পাওয়ারলুম শ্রমিক আব্দুস সাত্তার জানান, প্রায় ২০ বছর ধরে তাঁতের শ্রমিক হিসাবে কাজ করে ৭ জনের সংসার চালিয়ে আসছি।  কাজ যতোই৷ কম থাকুক না কেন প্রতি সপ্তাহে কম পক্ষে ২ হাজার থেকে ৩ হাজার টাকা কামাই করি। বর্তমানে কারেন্টে ডিস্টার্ব থাকায় ঠিক মতো কাজ হচ্ছে না। যার কারণে কামাইও কমে গেছে। কারেন্ট যেভাবে আসা-যাওয়া করছে এতে আমার মতো সকলেরই কামাই কমে গেছে। কামাই কমে যাওয়ায় সংসার চালাতে হিমসিম খাচ্ছি।

রায়গঞ্জের বহ্মগাছা গ্রামের  তাঁত শ্রমিক রহিজ উদ্দিন বলেন, বেশ কিছুদিন  ধরে কারেন্ট জ্বালাতন শুরু করেছে। যার কারণে আমাদের কাজ কাম কমে গেছে। এভাবে যদি কারেন্ট জ্বালায় তাহলে আমাদের আয় কমে যাবে। আর যদি কমে যায় তাহলে সংসার চালবো কেমন করে। এ নিয়ে চিন্তা করে ঝিম ধরে বসে রয়েছি। বেলকুচির রায় প্রডাক্টসের মালিক রিপন সাহা বলেন, ঘন ঘন লোডশেডিংয়ের কারণে জেনারেটর দিয়ে কারখানা চালু রাখা হতো। কিন্তু হঠাৎ করে তেলের দাম বেড়ে যাওয়ায় জেনারেটরও চালানো যাচ্ছে না। ৪ থেকে ৫ ঘন্টা জেনারেটর চালু রাখলে পাঁচ-সাত লিটার তেল প্রয়োজন হচ্ছে। এই কয়েক ঘন্টার জন্য ১ হাজার টাকা খরচ হয়। এতে উৎপাদন খরচ বেড়েছে অনেক বেশি।

সদর উপজেলার সয়দাবাদ এলাকার বিসমিল্লাহ সুতার দোকানের মালিক বিদ্যুৎ সরকার বলেন, লোডশেডিং, অন্যদিকে সুতার মূল্য বৃদ্ধি। এতে তাঁতিদের লোকসান গুনতে হচ্ছে। ৫০ কাউন্টের ১ বস্তা সুতা ১ বছর আগেও ছিল ১৪ হাজার ৫০০  টাকা, এখন সেই সুতার বস্তা ২২ হাজার ২০০ টাকা। ব্যবসা টিকিয়ে রাখাই কঠিন হয়ে পড়েছে।

সিরাজগঞ্জ বড় বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক চেম্বার অব কমার্সের পরিচালক শফিকুল ইসলাম জিন্না বলেন, বিদ্যুৎ বিল ও জেনারেটরও চালাতে হচ্ছে। ফলে উৎপাদন খরচ বেড়েছে কয়েকগুন। তাঁত মালিকদের গুনতে হচ্ছে লোকসান। বর্তমানে এই শিল্প টিকিয়ে রাখা এখন কঠিন হয়ে পড়েছে। জেলার তাঁত শিল্প টিকিয়ে রাখার জন্য বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক রাখার দাবি জানিয়েছেন তিনি।

বাংলাদেশ পাওয়ালুম এন্ড হ্যান্ডলুম অনার্স এ্যাসেসুয়েশনের সভাপতি বদিউজ্জামান বলেন, লোডশেডিং ও তেলের দাম বাড়ার কারণে অধিকাংশ সময় কারখানায় উৎপাদন বন্ধ থাকছে। শ্রমিকেরাও কাজ করতে পারছেন না। নতুন করে তেলের মূল্যবৃদ্ধিতে সুতার দামও বেড়েছে। আর যতটুকু কাপড় তৈরি করা হচ্ছে, তা বিক্রি করা যাচ্ছে না। এতে লোকসান গুনতে হচ্ছে মালিকদের।

তিনি আর বলেন, জেলায় প্রায় ১ লাখ ২৫ হাজার তাঁতকল রয়েছে। এগুলোর মধ্যে অর্ধেকেরও বেশি যন্ত্র বন্ধ রয়েছে। লোডশেডিংয়ের কারণে শ্রমিকেরাও বেকার হয়ে যাচ্ছেন। তাঁরা অন্য পেশায় চলে যাচ্ছেন। সবকিছু মিলিয়ে কারখানা চালানো যাচ্ছে না। তাঁত মালিকেরা দিশেহারা হয়ে পড়েছেন। আর তাঁতের ব্যবসা টিকে না থাকলে জেলার লক্ষ লক্ষ মানুষ বেকার হয়ে যাবে। তাই সরকার ব্যবসায়ীদের দিকে লক্ষ্য রাখা উচিত বলে মনে হয় তিনি।

শেয়ার করুন আপনার পছন্দের সোশ্যাল মিডিয়ায়
error: Content is protected !!