হোম » সারাদেশ » আমতলীতে দুই জেলের কারাদন্ড। 

আমতলীতে দুই জেলের কারাদন্ড। 

এইচ এম কাওসার মাদবর: নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে পায়রা নদীতে ইলিশ শিকারের অপরাধে আমতলীর দুই জেলেকে ১৫ দিন করে কারাদন্ডের আদেশ দিয়েছেন। রবিবার রাতে আমতলী ভ্রাম্যমাণ আদালতের নিবার্হী ম্যাজিস্ট্রেট এসিল্যান্ড মোঃ নাজমুল ইসলাম এ দন্ডাদেশ দেন। জানাগেছে, ৪ অক্টোবর থেকে ২৫ অক্টোবর ২২ দিন ইলিশ শিকারের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছেন সরকার। এ সময়ে ইলিশ শিকার, পরিবহন,মজুদ ও বিক্রি বন্ধ থাকবে। নিষেধাজ্ঞার সপ্তম দিনে পায়রা নদীতে ইলিশ শিকারের অপরাধে মোঃ জয়নাল ফকির ও জসিম নামের দুই জেলেকে উপজেলা ভ্রাম্যমাণ আদালত, মৎস্য বিভাগ ও পুলিশ অভিযান চালিয়ে আটক করে।

ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক এসিল্যান্ড মোঃ নাজমুল ইসলাম প্রত্যেক জেলেকে দন্ডবিধি ১৮৬০ এর ১৮৮ ধারায় ১৫ দিনের বিনাশ্রম কারাদন্ডের আদেশ দিয়েছেন। সোমবার পুলিশ তাদের আমতলী সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠিয়েছে। দুই জেলের বাড়ী তালতলী উপজেলার গাবতলী চৌদ্দঘর গ্রামে। জয়নাল ফকিরের বাবার নাম ওসমান ফকির এবং জসিম উদ্দিনের বাবার নাম মোহাম্মদ আলী হানিফ। ওই দুই জেলে নিজ এলাকা থেকে ৪০ কিলোমিটার দুরে পায়রা নদীর বৈঠাকাটা এলাকায় এসে মাছ শিকার করছিল। এ সময় তারা উপজেলা ভ্রাম্যমাণ আদালত, মৎস্য অফিস ও পুলিশের যৌথ অভিযানে আটক হয়।

আমতলী উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকতার্ মোসাঃ হালিমা সরদার বলেন, ভ্রাম্যমান আদালত দুই জেলেকে ১৫ দিনের কারাদন্ডের আদেশ দিয়েছেন।
আমতলী থানার ওসি মোঃ শাহ আলম হাওলাদার বলেন, ভ্রাম্যমাণ আদালতের দন্ডাদেশ প্রাপ্ত দুই আসামীকে সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে পাঠানো হয়েছে। আমতলী উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি) ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক মোঃ নাজমুল ইসলাম বলেন, সরকারী নিষেধাজ্ঞা অমান্য করায় দন্ডবিধি ১৮৬০ এর ১৮৮ ধারায় দুই জেলের প্রত্যেককে ১৫ দিন করে কারাদন্ডের আদেশ দেয়া হয়েছে।
শেয়ার করুন আপনার পছন্দের সোশ্যাল মিডিয়ায়
error: Content is protected !!