হোম » প্রধান সংবাদ » জট খুলেনি ভৈরবে জামাল হত্যা রহস্য, সন্দেহভাজন বন্ধু গ্রেফতার।

জট খুলেনি ভৈরবে জামাল হত্যা রহস্য, সন্দেহভাজন বন্ধু গ্রেফতার।

এম আর ওয়াসিম,ভৈরব( কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি :  কিশোরগঞ্জের ভৈরবে  জামাল মিয়া হত্যা কান্ড রহস্য জনক রয়ে গেল। রহস্য জনক হয়ে রয়ে গেল জামাল হত্যা রহস্য। এদিকে সন্দেহভাজন বন্ধু ফরহাদ মিয়া ( ২৫)কে   পুলিশ গ্রেফতার করেছে । গ্রেফতারকৃত ফরহাদ মিয়া শ্রী-নগর ইউনিয়নের বাউসমারা গ্রামের মোঃ মোশারফ ওরফে পাষাণ আলীর পুত্র বলে জানা গেছে ।  গ্রেফতারকৃত ফরহাদকে   জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ  আদালতে ৭ দিনের রিমান্ডের আবেদন করেছে ।  মঙ্গলবার সকালে ভৈরব থানা পুলিশ ফরহাদকে তার বাড়ী থেকে থানায় ডেকে এনে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করে । পরে জিজ্ঞাসাবাদে হত্যাকান্ডে জড়িত সন্দেহে তাকে গ্রেফতার দেখিয়ে বুধবার জেল হাজতে প্রেরণ করে পুলিশ । তবে নিহতের স্ত্রী বিলকিছ বেগম  জানান, তার  চাচাতো ভাই ও  স্বামীর ঘনিষ্ঠ বন্ধু ফরহাদ মিয়া । তারা দীর্ঘদিন ধরে একসাথে চলাফেরা করতো ।

তার স্বামী হত্যাকান্ডের পর ফরহাদ হত্যাকান্ডকে ভিন্নখাতে নেয়ার চেষ্টা করে এবং মামলা না করার জন্য ও নানাভাবে বোঝানোর চেষ্টা করে বিলকিছ বেগমকে । ফরহাদের কথা বার্তায় বিলকিছের সন্দেহ হলে ফরহাদকে গ্রেফতার করার জন্য সে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ওসি ( তদন্ত) বাহালুল খানকে বার বার অনুরোধ করেন । কিন্ত তাতেও কাজ না হওয়ায় অবশেষে ফরহাদকে গ্রেফতারের জন্য তিনি গত ২ ডিসেম্বর কিশোরগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপারের কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন । অভিযোগের পরই পুলিশ ফরহাদকে মঙ্গলবার গ্রেফতার করে বুধবার আদালতে প্রেরণ করে ।এ বিষয়ে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ওসি ( তদন্ত ) বাহালুল খান বাহার জানান,  ফরহাদকে সন্দেহ ভাজন হিসেবে গ্রেফতার করে আদালতে পাঠানো হয়েছে । তাছাড়া ফরহাদের রিমান্ডের জন্য আদালতে ৭ দিনের আবেদন করা হয়েছে ।

উল্ল্যেখ্য গত ১০ নভেম্বর রোববার বিকালে ভৈরবের শম্ভুপুর আলুকান্দার একটি নির্জন জঙ্গল থেকে  পুরুষাাঙ্গ কাটা বিবস্ত্র অবস্থায় জামাল মিয়ার মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ । সে ৩ সন্তানের জনক ছিল ।  নিহত জামাল উপজেলার শ্রীনগর ইউনিয়নের বাউসমারা গ্রামের বাসিন্দা ছিলেন। নিহতের স্বজনদের দাবী, ভৈরব শহরের কমলপুর গাছতলা ঘাট এলাকার একটি মেয়ের সাথে মুঠোফোনে প্রায়ই জামালের  কথা হতো। গত শনিবার রাতে ফোনে মেয়েটির ডাকে সাড়া দিয়ে নিহত জামাল শহরে দেখা করতে আসে। এরপর থেকে তার আর খোজঁ মিলছে না। পরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছবি দেখে নিহতের খবর পায় তারা।পরদিন ১১ নভেম্বর সোমবার সকালে নিহতের স্ত্রী বিলকিছ বেগম বাদী হয়ে ভৈরব থানায় অজ্ঞাতনামা আসামি করে  ১টি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

শেয়ার করুন আপনার পছন্দের সোশ্যাল মিডিয়ায়
error: Content is protected !!