হোম » প্রধান সংবাদ » বরগুনায় বেতাগীতে ২৫ রাজাকার! তালিকা থেকে বাদ যায়নি বঙ্গবন্ধুর উপমন্ত্রীর নাম

বরগুনায় বেতাগীতে ২৫ রাজাকার! তালিকা থেকে বাদ যায়নি বঙ্গবন্ধুর উপমন্ত্রীর নাম

বরগুনা প্রতিনিধি:মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রকাশিত প্রথম দ্বাপের তালিকা অনুসারে বরগুনার বেতাগীতে বাংলাদেশের স্বাধীনতা বিরোধিতা কারী ২৫ জন রাজাকারের  নামের তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে। এম মধ্যে ঠাঁই পেয়েছে মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠন ও বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম শাহজাদা আব্দুল মালেক খান সাহেবের নাম। অন্যান্য যাদের নাম তালিকায় প্রকাশ করা হয়েছে তার অধিকাংশেরই বাবার নাম ও ঠিকারা নেই।  যা সম্পূর্ন অসংগতিপূর্ন।ফলে তালিকায় সঠিক পরিচয় না থাকায় এ নিয়ে স্থানীয়দের মাঝে নানা ধরনের বিভ্রান্তির সৃষ্টি হয়েছে।এমনকি খোদ মুক্তিযোদ্ধারাও চিহৃত করতে পারছেন না তালিকায় যাদেন নাম প্রকাশ করা হয়েছে প্রকৃত পক্ষে ওইসব ব্যাক্তিরা কারা।
গত রোববার মুক্তিযোদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয় এর প্রকাশিত তালিকার ২১নং পৃষ্ঠার ৭৫ নং ক্রমিকে এ অঞ্চলের মুক্তিযোদ্ধা অন্যতম সংগঠক ও বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা এবং সাবেক মন্ত্রী শাহজাদা আব্দুল মালেক খানের নামও এ রাজাকারের তালিকায় রয়েছে তার বাবা আবি আব্দুল্লাহ খান। উপজেলার বুড়ামজুমদার ইউনিয়নের কাউনিয়া গ্রামে তার বাড়ি। শাহজাদা আব্দুল মালেক খান জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমানের সময় তার কেবিনেটের উপমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।
মন্ত্রণালয়ের প্রকাশিত রাজাকারের তালিকায় অন্যান্যরা হলেন, বেতাগী উপজেলার বড় মোকামিয়া গ্রামের ধলাই মোল্লার ছেলে কাঞ্চন আলী। বুড়ামজুমদার গ্রামের মোহাম্মদ মল্লিকের ছেলে সের আলী মল্লিক। করুনা গ্রামের খাদেম আলীর ছেলে আব্দুল রহমান, বিবিচিনি গ্রামের আফসার খন্দখার এর ছেলে নুর মোহাম্মদ, গড়িয়াবুনিয়া গ্রামের মুজাফর আলী মৃধা এর ছেলে বেলায়েত আলী মৃধা। ফুলতলা গ্রামের এমেল উদ্দীন এর ছেলে আফেজ উদ্দীন আহম্মেদ,  ভোলানাথপুর গ্রামের জহির উদ্দিন মল্লিকের ছেলে কাঞ্চন মল্লিক। মাহবুব উল আলম খান, কাজেম মীর ফকর আলী, ফজলুল করিম সিকদার, আঃ মজিদ মল্লিক। আঃ রশিদ জোমাদ্দার, আলতাফ হোসেন, আঃ খালেক মিয়া। ফকর উদ্দিন আহম্মেদ, নয়ন, আলী হাওলাদার, চান সিকদার, আঃ মজিদ, আঃ মান্নান ও নুরমোহাম্মাদ।  স্থানীয় একাধিক মুক্তিযোদ্ধারা অভিযোগ করেন, মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক ও মুক্তিযোদ্ধা শাহজাদা আব্দুল মালেক খান এর নামও যে এ রাজাকারের তালিকায় এটা অত্যন্ত দুঃ খজনক।  এছাড়াও প্রকাশিত তালিকায় হ য ব র ল রয়েছে।
এ বিষয় উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের প্রশাসন মোঃ রাজীব আহসান বলেন, মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয় থেকে প্রকাশিত তালিকায় মুক্তিযুদ্ধের সংগঠকের নাম রাজাকারের তালিকায় এসে থাকলে, সেটা যাচাই করে সংশোধনের জন্য মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় পাঠানো হবে। এছাড়া উপজেলা অন্যান্য যাদের নাম রয়েছে সাময়িকভাবে তা সঠিক বলেই আমার মনে হচ্ছে। কারন এখনো কোন ধরনের অভিযোগ পাওয়া যায়নি। তিনি আরও জানান, যতদিন ধরে দায়িত্বে রয়েছেন এ সময়ের মধ্যে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয় থেকে কোন রাজাকারের তালিকা চাওয়া হয়নি।
শেয়ার করুন আপনার পছন্দের সোশ্যাল মিডিয়ায়
error: Content is protected !!