হোম » প্রধান সংবাদ » আন্তর্জাতিক অভিবাসী দিবসে- আইবিসি নারী কমিটির পরামর্শ

আন্তর্জাতিক অভিবাসী দিবসে- আইবিসি নারী কমিটির পরামর্শ

খাদিজা আক্তারঃ অদ্য ১৮ ডিসেম্বর ২০১৯ আন্তর্জাতিক অভিবাসী দিবস।এই দিবসটি উপলক্ষ্যে ‘ইন্ডাষ্ট্রিঅল বাংলাদেশ কাউন্সিল ওম্যান্স কমিটি’ আওয়াজ ফাউন্ডেশন স্কুল অব লার্নিং সেন্টারে একটি পরামর্শ সভার আয়োজন করে। সংগঠনের সভাপতি সাফিয়া পারভীনের সভাপতিত্বে বিভিন্ন দেশে কর্মরত বাংলাদেশী নারী অভিবাসীকর্মীদের বিভিন্ন সমস্যা ও তার সমাধানের উপায় নিয়ে আলোচনা হয়।

পরামর্শ সভায় প্রধান অতিথী হিসাবে উপস্থিত ছিলেন ‘ইন্ডাষ্ট্রিঅল বাংলাদেশ কাউন্সিলের সভাপতি রুহুল আমীন, বিশেষ অতিথী ‘ইন্ডাষ্ট্রিঅল বাংলাদেশ কাউন্সিলের সাধারন সম্পাদকের পক্ষে যুগ্ম সাধারন সম্পাদক নাহিদুল হাসান নয়ন। ‘ইন্ডাষ্ট্রিঅল বাংলাদেশ কাউন্সিল ওম্যান্স কমিটি বিভিন্ন ট্রেড ইউনিয়ন নেত্রীগন বিশেষ করে মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলিতে আমাদের মেয়েদের শারীরিক, মানসিক,  যৌন নির্যাতনসহ বিভিন্ন বৈষম্যের চিত্র তুলে ধরেন। ঐসকল দেশে আমাদের দূতাবাসগুলোর কড়া সমালোচনা করেন। রিক্রুটিং এজেন্সিগুলো কর্মসংস্থানের নামে মেয়েদের বিদেশে পাঠিয়ে কোটি কোটি টাকার ব্যবসা করছে; কিন্ত এই সকল নারী অভিবাসীকর্মীদের নিরাপত্তা দানে ব্যর্থ হচ্ছে। এই সকল ভাগ্যহত নারী অভিবাসীকর্মীদের নিরাপত্তা বিধানে সরকারের কার্যকরী পদক্ষেপ নেয়ার জোর দাবী জানান।

‘ইন্ডাষ্ট্রিঅল বাংলাদেশ কাউন্সিল ওম্যান্স কমিটি’র সাধারন সম্পাদক ও পরামর্শ সভার সঞ্চালক ট্রেড ইউনিয়ন নেত্রী খাদিজা আক্তার বলেন, আমাদের কোথাও হাত-পা বাধা নেই। ট্রেড ইউনিয়ন কার্যক্রম বিশ্বব্যাপী। আগেও আমরা জর্ডান মরিশাসসহ বিভিন্ন দেশে ‘ইন্ডাষ্ট্রিআল গ্লোবাল ইউনিয়নের’ মাধ্যমে নির্যাতিত আমাদের কর্মীদের সহযোগিতা দিয়েছি।

সভায় আওয়াজ ফাউন্ডেশনের অভিবাসন পরিচালক আনিসুর রহমান খান আন্তর্জাতিক শ্রম অভিবাসন তথা নারী অভিবাসীকর্মীদের রিক্রুটিং থেকে শুরু করে ফেরত আসা পর্যন্ত সামগ্রিক প্রেক্ষাপট তুলে ধরন। তিনি বলেন, দেশে পর্যাপ্ত আইন আছে; কিন্ত তাঁর সুফল তৃনমূলে পৌছায়নি। আওয়াজ ফাউন্ডেশন তার বিভিন্ন জেলা শাখা অফিসের মাধ্যমে সরকারের গৃহিত সুফলগুলো তৃনমূলে পৌঁছে দেবে। আওয়াজ সাম্ভাব্য অভিবাসীদের সিদ্বান্ত গ্রহন, প্রাক বহির্গমন, প্রবাসী দেশগুলো সম্মন্ধে সম্যক ধারনা দিয়ে থাকে। এছাড়াও প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রনালয়ের বিএমইটি’র মাধ্যমে প্রতারিতদের আইনী সহায়তা, ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ বোর্ডের মাধ্যমে চিকিতসা সেবাসহ অভিবাসী পরিবারের সন্তানদের শিক্ষাবৃত্তি প্রদান ও অন্যান্য সেবা প্রদান, প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংকের মাধ্যমে অভিবাসন ঋন ও পুনর্বাসন ঋণ, বোয়েসেলের মাধ্যমে প্রায় বিনা খরচে অভিবাসন সম্মন্ধে বিষদ আলোচনা করেন। সভায় ইন্ডাষ্ট্রিঅল বাংলাদেশ কাউন্সিলের সমন্বয়ক রফিকুল আলম, শ্রাবনী নাহার, ‘ইন্ডাষ্ট্রিঅল বাংলাদেশ কাউন্সিল ওম্যান্স কমিটির লুতফা আক্তার, ফরিদা ইয়াসমিন, জাকিয়া সুলতানা, সীমা আক্তার ও অন্যান্য নেত্রীবৃন্দ পরামর্শমূলক বক্তব্য রাখেন।

এ পর্যায়ে উপস্থিত নেত্রীবৃন্দ তাঁদের নিম্নোক্ত প্রস্তাবনা তুলে ধরেন-

  • মহিলা অভবাসীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে অভিবাসী দেশগুলোতে আমাদের দূতাবাসের লোকবল বাড়াতে হবে।
  • ফেরত আসা কর্মীদের সামাজিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সরকারের তৃনমূল পর্যায়কে কাজে লাগাতে হবে।
  • অভিবাসীদের সেবারমান ও সহযোগিতা বৃদ্বিতে শ্রমিক গ্রহনকারী ও প্রেরনকারী উভয় দেশের ট্রেড ইউনিয়নগুলির সাথে সরকারের যোগাযোগ বাড়াতে হবে।
  • গার্মেন্টসসহ বিভিন্ন পেশায় দক্ষ কর্মীর জন্য শ্রম বাজার খোঁজতে হবে।
  • কর্মস্থলে নারীর নিরাপত্তা বিধানে সরকারকে আইএলও কনভেনশন ১৮৯ ও ১৯০ রেটিফাই করতে হবে
  • শ্রম শক্তি প্রেরনকারী এজেন্সিগুলোকে আইনী আওতায় এনে মানবিক মূল্যবোধে উজ্জীবিত করতে হবে
  • সর্বস্তরের শ্রমিক নেতৃত্ব বিশেষভাবে নারী নেত্রীদের মহিলা অভিবাসীকর্মীদের অধিকার রক্ষায় প্ল্যাটফরম তৈরী করতে হবে
  • নারী অভিবাসী কর্মীর শোভন কাজের পরিবেশ নিশ্চিত করতে হবে।
শেয়ার করুন আপনার পছন্দের সোশ্যাল মিডিয়ায়
error: Content is protected !!