হোম » প্রধান সংবাদ » ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় মাদক সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ বিরোধী ছাত্র-শিক্ষক সমাবেশ অনুষ্ঠিত

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় মাদক সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ বিরোধী ছাত্র-শিক্ষক সমাবেশ অনুষ্ঠিত

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে (ইবি) কুষ্টিয়া জেলা পুলিশের আয়োজনে মাদক,সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে ছাত্র-শিক্ষক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।আজ  মঙ্গলবার (২৬ নভেম্বর) বিশ্ববিদ্যালয়ের বীরশ্রেষ্ঠ হামিদুর রহমান মিলনায়তনে বিকাল তিনটায় অনুষ্ঠিত হয়েছে। কুষ্টিয়া পুলিশ সুপার এস এম তানভীর আরাফাতের সভাপতিত্বে এবং অতিরিক্ত পুলিশ সুপার গোলাম সবুরের ও সিনিয়র এএসপি ফারজানার সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন, প্রধান অতিথি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোঃ হারুন-উর-রশিদ আসকারী, প্রধান বক্তা বাংলাদেশ পুলিশ খুলনা রেঞ্জের ডিআইজি ড. খঃ মহিদ উদ্দিন,বিশেষ অতিথি উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোঃ শাহিনুর রহমান, মোঃ আসলাম হোসেন জেলা প্রশাসক কুষ্টিয়া, ট্রেজারার অধ্যাপক ড. সেলিম তোহা, প্রক্টর (ভারপ্রাপ্ত) ও ছাত্র উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. পরেশ চন্দ্র বর্মণ প্রমুখ।
এসময় প্রধান অতিথি উপাচার্য ড. রাশিদ আসকারী বলেন, একটি জিনিস স্বীকার না করলেই নয়, আমি যখন ছাত্র ছিলাম আশির দশকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগে, চার বছরের অনার্স করতে সময় লেগেছিল আট বছর, সেই সময়ে ক্যাম্পাসে পুলিশ ছিল একটি নিষিদ্ধ বস্তু। আজকে আমি যখন উপাচার্য, সেই সময়ে পুলিশ একটি বিশ্ববিদ্যালয় উপস্থিত থেকে একটি অনুষ্ঠানে একজন শিক্ষকের মতো, একজন গবেষকের মত দীর্ঘ সময় একটি অনুষ্ঠানে উপস্থিত থেকে বক্তব্য দেন এবং সবাই সেটা মনোযোগ সহকারে শুনছেন। এই দৃষ্টান্ত বাংলাদেশের অগ্রযাত্রার সবচেয়ে বড় প্রতীক। এটি সম্ভব হয়েছে, জননেত্রী শেখ হাসিনা নেতৃত্বের কারণে।
উপাচার্য বলেন মাদক একটি ব্যক্তি সমাজ রাষ্ট্র কে নষ্ট করে দেয়।একজন মানুষ  অসামান্য সম্ভাবনা আছে সেটা যদি আমরা পরিপূর্ণ বিকাশিত তো না করতে পারি তাহলে একজন মানুষ এক একটি সভ্যতা হিসেবে গড়ে উঠবে।এসময় তিনি সরকার এবং পুলিশ বাহিনীর কাছে অনুরোধ করেন মাদক ডুকছে কি করে বাংলাদেশ? এসময় তিনি বলেন মাদক উৎপাদিত হচ্ছে গোল্ডেন ট্রায়াঙ্গেল মিয়ানমারের লাওসে পাকিস্তান আফগানিস্তানের সেখান থেকে কোন চোরা রাস্তা থেকে বাংলাদেশে প্রবেশ করছে তার সমস্ত রাস্তা বন্ধ করে দিতে হবে।
এসময় এসময় তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিকীকরণ এর কথা উল্লেখ করে বলেন এই মুহূর্তে বিশ্ববিদ্যালয় 50 জন বিদেশি শিক্ষার্থী অধ্যায়ন করছে।ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় লেখাপড়া গবেষণা উদ্ভাবন খেলাধুলা এবং সংস্কৃতি চর্চায় অসামান্য অবদান রেখে যাচ্ছে।
এসময় তিনি উল্লেখ করে বলেন বিশ্ববিদ্যালের অবকাঠামোগত উন্নয়নের জন্য বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা 537 কোটি 7 লক্ষ টাকা দিয়েছে এবং সেই মেগা প্রজেক্ট এর বাস্তবায়নের কাজ শুরু হয়েছে। মেগা প্রজেক্ট বাস্তবায়িত হলে 85 শতাংশ শিক্ষার্থী আবাসন গড়ে উঠবে। মেগা প্রজেক্ট বাস্তবায়নে বর্তমান প্রশাসন বদ্ধপরিকর।
এছাড়া এসময় উপস্থিত ছিলেন,বিশ্ববিদ্যালয়ের (ভারপ্রাপ্ত) রেজিস্ট্রার এস এম আব্দুল লতিফ, আইন অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. রেবা মন্ডল, সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. নাসিম বানুসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারী, শিক্ষার্থী, ইলেকট্রনিকস ও প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ।এছাড়া আলোচনা সভা শেষে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়েছে।
শেয়ার করুন আপনার পছন্দের সোশ্যাল মিডিয়ায়
error: Content is protected !!