হোম » প্রধান সংবাদ » সিরাজগঞ্জের সয়দাবাদে ক্ষতিগ্রস্থ হাজারো কৃষক

সিরাজগঞ্জের সয়দাবাদে ক্ষতিগ্রস্থ হাজারো কৃষক

হুমায়ুন কবির সুমন, সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি : সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার সয়দাবাদ ইউনিয়নের বাঐতারা সুইচ গেট বন্ধ থাকার কারনে বৃষ্টির পানি নদী-খাল দিয়ে নামতে না পেরে, ৫ হাজার একর ফসলি জমি পানিতে তলিয়ে গেছে। এত হাজার হাজার কৃষক ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। নিজের সন্তানের মত লালন করে আসা শরীরের রক্ত পানি করা কৃষের পরিশ্রমের সোনার ফসলী জমি এভাবে পানিতে তলিয়ে থাকা দেখে প্রতিদিন শতশত কৃষক পরিবার তাদের জমির সামনে বসে থেকে হাহাকার করছে ।

এদিকে সয়দাবাদ ইউনিয়নের পুর্ব বাঐতারা, পুর্ব মোহনপুর, সয়দাবাদ, দুখিয়াবাড়ী ও কালিয়াহরিপুর ইউনিয়নের ছাতীয়ানতলী, মোড়গ্রাম, বেলুটিয়াগ্রামের ৩ হাজার মানুষ পানিবন্দি ও প্রায় ৫ হাজার একর ফসলী জমিতে পানি আটকে কৃত্রিম জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। এর ফলে ঐ এলাকার মানুষ চরম দুর্ভোগের স্বীকার হচ্ছে। এমনকি যদি এই মৌসুমে পানি না সড়ানো যায় তাহলে অত্র এলাকার মানুষ সরিষা ও ধানের চাষাবাদ করতে পারবেনা।

সরেজমিনে সয়দাবাদ ইউনিয়নের ক্ষতিগ্রস্থ কৃষি বান্ধব এলাকায় প্রায় ৫ হাজার একরের ক্ষেত ঘুরে দেখাযায় , অধিকাংশ জমির পানিতে তলিয়ে আছে। স্থানীয় পুর্বমহনপুর গ্রামের মো: জাহাঙ্গীর আলম জানান, লিখিত আকারে সদর উপজেলার প্রশাসনকে জানানোর পরও যখন বাঐতারা সুইচ গেট খুলছেনা। এর ফলে আমাদের এই এলাকায় এই মৌসুমে ধান শরিষা চাষ করা গেলনা, যদি সময়মত সুইচ গেইটের পানি ছাড়ার জন্য আমাদের সাহায্য করতো তহলে আমাদের জমিগুলো বাচাইতে পারতাম। আর ৫ একর জমিতে কৃষকরা চাষ করতে পারতো। ৩ হাজার মানুষ পানিবন্দির হাত থেকে রক্ষা পেতো।

এবিষয়ে ১০ নং সয়দাবাদ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মো: নবীদুল ইসলাম বলেন, এ সমস্যা ও সমাধান বিষয়ে সিরাজগঞ্জ সদর আসনের সংসদ সদস্য অধ্যাপক ডা: হাবিবে মিল­াত মুন্না, জেলা প্রশাসক, সদর উপজেলার নির্বাহী অফিসার, পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী বরাবর বাঐতারা সুইচ গেট খুলেদেওয়ার জন্য আবেদন করা হয়েছে। এই জলাবদ্ধতা দূরীকরণে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করছি।

শেয়ার করুন আপনার পছন্দের সোশ্যাল মিডিয়ায়
error: Content is protected !!