হোম » প্রধান সংবাদ » ইবি’র প্রগতিশীল শিক্ষক ড. মাহবুবর এর কুশপুত্তলিকা দাহকারীদের শাস্তির দাবি জানিয়েছে শাপলা ফোরাম

ইবি’র প্রগতিশীল শিক্ষক ড. মাহবুবর এর কুশপুত্তলিকা দাহকারীদের শাস্তির দাবি জানিয়েছে শাপলা ফোরাম

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়( ইবি)  প্রগতিশীল শিক্ষক অধ্যাপক ড. মাহবুবর রহমান এর কুশপুত্তলিকা দাহ সহ তার বিরুদ্ধে অপ-প্রচারের প্রতিবাদে শনিবার (২৩ নভেম্বর) প্রগতিশীল শিক্ষক সংগঠন শাপলা ফোরাম তীব্র নিন্দা ও বিশ্ববিদ্যালয় কতৃপক্ষের কাছে প্রতিবাদের দাবি জানিয়েছে।
 গত মঙ্গলবার ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের পদবঞ্চিত ও বিদ্রোহী দলের নেতারা মহান মুক্তিযুদ্ধ, বাঙালি জাতীয়তাবাদে বিশ্বাসী প্রগতিশীল শিক্ষকদের ফোরাম ‘শাপলা ফোরাম’ এর সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. মাহবুবুর রহমান এর কুশপুত্তলিকা দাহ সহ শিবির সন্দেহে নানা মিথ্যা অপ-প্রচার করে বলে জানা যায়
 এবিষয়ে প্রগতিশীল শিক্ষক সংগঠন শপলা ফোরামের সভাপতি অধ্যাপক ড. মোঃরেজওয়ানুল ইসলাম সাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, গত বেশ কিছুদিন শাপলা ফোরামের সাধারণ সম্পাদক ড.মোঃমাহবুবর রহমানের বিরুদ্ধে কিছু ছাত্র/ছাত্র নামধারী বহিরাগত এবং প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়া মিথ্যা ও ভিত্তিহীন অভিযোগ চালিয়ে যাচ্ছে।
ড.রহমান শুধু প্রগতিশীল রাজনীতিই করেন না তিনি দীর্ঘ প্রায় ২১ বছর ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রগতিশীল সংগঠন সমূহের অবিভাবক ও সংগঠক হিসাবে কাজ করে যাচ্ছেন।তার বিরুদ্ধে ধারাবাহিক অপ-প্রচারের অংশ হিসাবে গত ১৯-১১-২০১৯ তারিখে কিছু ছাত্র/ছাত্র নামধারী বহিরাগত ড.মাহবুবুর রহমানের কুশপুত্তলিকা দাহ করে যাহা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমাজকে বিস্মিত করে।এহেন উপ-প্রচার ও ঘৃন্য কাজের ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় শাপলা ফোরাম তীব্র নিন্দা ওপ্রতিবাদ জানাচ্ছে।
 এই ধরনের ঘৃন্য কাজের সাথে জড়িত ছাত্রদের যথাযথ তদন্তের মাধ্যমে শাস্তি প্রদান ও বহিরাগতদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যাবস্থা গ্রহনের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় কতৃপক্ষের কাছে শাপলা ফোরাম ঘোর দাবি জানাচ্ছে।
উল্লেখ্য,একাধিক সাবেক শিক্ষক শিক্ষার্থীর সাথে এবিষয়ে কথা বলে জানা যায়, প্রক্টর থাকাকালীন ২০১৭ সালের ১৪ আগষ্ট অধ্যাপক মাহবুবরের নেতৃত্বে শিবিরের দূর্গ খ্যাত ইবির হলগুলো শিবির মুক্ত হয়েছিলো। বিনা রক্তপাতে হলসমূহ শিবিরমুক্ত করে হলগুলোতে হলবডি এবং বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের নিয়ন্ত্রন ফিরে আসে। এছাড়া বঙ্গবন্ধু হলে প্রভোস্টের দায়িত্ব নেয়ার পরে ২০০৯ সালে বিভিন্ন মহলের প্রবল বাধার মুখে, ইসলামী ছাত্রশিবির লেখা মুছে হল গেট সম্মুখে “বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল এবং বাংলাদেশের ম্যাপ” স্থাপন করেছিলেন তিনি।
শেয়ার করুন আপনার পছন্দের সোশ্যাল মিডিয়ায়
error: Content is protected !!