হোম » প্রধান সংবাদ » সান্তাহারে শান্তিপূর্ন ও উৎসব মুখর পরিবেশে ৩দিন ব্যাপী সার্বজনীন রাসপূজা সম্পন্ন

সান্তাহারে শান্তিপূর্ন ও উৎসব মুখর পরিবেশে ৩দিন ব্যাপী সার্বজনীন রাসপূজা সম্পন্ন

গোলাম রাব্বানী দুলাল,আদমদিঘী উপজেলা প্রতিনিধি :বগুড়ার আদমদীঘির সান্তাহারের বশিপুর হিন্দুপাড়ায় ধর্মীয় ভাবগাম্ভির্যের মধ্যে ১০০তম রাসপূজা সম্পন্ন হয়েছে। ঐতিহ্যবাহী এই রাস পূজায় মণ্ডপে সনাতন ধর্মের বিভিন্ন যুদ্ধের কাহিনী ও পুরাকীর্তির চিত্র ফুটিয়ে তোলাহয়েছিলো। বুধবার পূজার শেষ দিনে পূজা মণ্ডপে দর্শকদের ভিড় ছিল চোখে পড়ার মতো। গত সোমবার থেকে এই পূজা শুরু হয়। এ পূজার  বিশেষ আকর্ষণ দিনের আলো শেষ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে বিভিন্ন জায়গা থেকেদর্শনার্থীরা আসতে থাকেন। রাত যত গভীর হয় তত জনসমাগম বাড়তে থাকে।

 

রাস পূজা দেখতে আসা সান্তাহারের বড় আখিড়া গ্রামের শুভ চক্রবত্তী জানান সান্তাহার বশিপুর সার্বজনীন পূজা  মন্দিরে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের মধ্যে রাসপূজা খুবই জনপ্রিয়। এ পূজা  উপলক্ষে গোটা গ্রামকে সাজানো হয়বর্ণিল সাজে। চোখ ধাঁধানো আলোকসজ্জাসহ গ্রামে বিভিন্ন স্থানে তৈরি করা হয় গেট, প্যান্ডেল ইত্যাদি।

তিনি আরও বলেন, বর্ণিল এ আয়োজন দেখতে বাংলাদেশেরর বিভিন্ন প্রান্ত থেকে বহু দর্শনার্থী ছুটে আসেন। তবে রাতেই বেশি লোকের সমাগম হয়। মূলত রাস পূজা রাতের পূজা। সম্প্রতির বার্তা দিতেই রাস পূজায়প্রতিবছরে দুর্গা পূজার ঠিক এক মাস পর বাংলা কার্তিক, ইংরেজি নভেম্বর মাসে আয়োজিত হয় তিন দিনব্যাপী রাস পূজা। সমগ্র এলাকায় আর কোথাও বশিপুর হিন্দুপাড়ার মতো এতোটা জাঁকজমকপূর্ণ ভাবে রাস পূজা উদযাপিত হয় না। সারাদেশে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের কাছে দুর্গাপূজা সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব হলেও বশিপুর হিন্দুপাড়ায় এর ব্যতিক্রম। তাদের কাছে মূল  উৎসব রাস পূজা। এই পূজা উপলক্ষে গ্রামের সর্বত্র বিরাজ করেউৎসবের আমেজ।

মন্ডপের সভাপতি শ্রী তাপস সরকার বলেন, বাংলাদেশের উত্তরাঞ্চলে আমার জানা মতে রাস পূজা খুব কম হয় । এই পূজা দেখার জন্য অনেক দূর থেকে দর্শনার্থীরা আসেন। পূজার আগত হিন্দু ধর্মাবলীদের নিরাপত্তারবিষয়ে পুলিশ প্রশাসন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে।

শেয়ার করুন আপনার পছন্দের সোশ্যাল মিডিয়ায়
error: Content is protected !!