রাবিতে শিক্ষক-চাকুরি প্রত্যাশীদের মধ্যে ধাক্কাধাকি, গুলি করার হুমকি!

রাবি প্রতিনিধি:রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে দূর্নীতি বিরোধী শিক্ষক ও চাকুরি প্রত্যাশী ছাত্রলীগের মধ্যে ধ্বস্তা ধ্বস্তির ঘটনা ঘটেছে। এর মধ্যে পূর্বনির্ধারিত সিন্ডিকেট সভা স্থগিত করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।  মঙ্গলবার বিশ্ববিদ্যালয় উপাচায্যর দূর্নীতি বিরোধী শিক্ষকদের বাধার মুখে সভাটি স্থগিত হয়। স্থগিতের বিষয়টি জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার অধ্যাপক আব্দুস সালাম।
অধ্যাপক আব্দুস সালাম বলেন, অনিবার্যকারণ বশত আপাতত সিন্ডিকেট সভাটি স্থগিত আছে। এখন পর্যন্ত সিন্ডিকেটের কোনো কাগজপত্র আমি সহি করি নাই। বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়, এর আগে সকাল ৮ টা থেকে ভিসি বাসভবনের সামনে এসে অবস্থান নেন চাকুরিপ্রত্যাশী ছাত্রলীগ ও স্থানীয়রা। পরে সেখানে উপস্থিত হন  বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যর দুর্নীতি বিরোধী শিক্ষক গ্রুপ। শিক্ষকরা উপাচার্য বাসভবনে সাক্ষাতের জন্য ঢুকতে চাইলে চাকুরী প্রত্যাশীদের বাধার সম্মুখীন হন। পরে সেখানে দুই পক্ষের মধ্যে ধাক্কা ধাক্কি হয়।
দুর্নীতি বিরোধী শিক্ষকের একজন বাংলা বিভাগের অধ্যাপক ড. শফিকুন্নবী সামাদী বলেন, আমরা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য এর সাথে দেখা করার জন্য বাসভবনের প্রবেশ করতে গিয়ে চাকুরিপ্রত্যাশীদের বাধার সম্মুখীন হই। একজন চাকুরি প্রত্যাশী শিক্ষকদের গুলি করার হুমকি দেয়। সেখানে ধ্বস্তাধ্বস্তি হয়।
সূত্রে জানা গেছে, হুমকিদাতার নাম আকাশ, সে ক্যাম্পাস সংলগ্ন বুধপাড়ার বাসিন্দা।দুর্নীতি বিরোধী শিক্ষকদের আহবায়ক অধ্যাপক ড. সুলতান উল ইসলাম টিপু অভিযোগ করেন, সকালে যখন শিক্ষকরা বাসভবনে ঢোকার চেষ্টা করেন তখন ছাত্রলীগ পরিচয় দেওয়া একজন বহিরাগত  বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের গুলি করার হুমকি দেয় এবং বাকিরা ঢুকতে বাধা দেয়। তিনি দাবি করেন এটি উপাচার্যর প্ররোচনায় হয়েছে। যদি এখানে শিক্ষকরা কোনো দূর্ঘটনার শিকার হয় তাহলে সেই দায় উপাচার্যর নিতে হবে। তবে বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাভাবিক অবস্থা ফিরে আসুক বলে চান তিনি।
এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. লুৎফর রহমান শিক্ষকদের অসযোগিতা করে চাকুরীপ্রত্যাশীদের সহযোগিতা করেছেন বলে অভিযোগ তার।  এ বিষয়ে জানতে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. লুৎফর রহমান অসহযোগিতার বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, আমি ক্যাম্পাসের শান্তি শৃঙ্খলা রক্ষায় সর্বোচ্চ ভূমিকা পালন করার চেষ্টা করেছি।