লালমনিরহাট পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র প্রার্থীদের সংক্ষিপ্ত তথ্য

মোঃ মাসুদ রানা রাশেদ, লালমনিরহাট জেলা প্রতিনিধি: আজ রবিবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) লালমনিরহাট পৌরসভা সাধারণ নির্বাচন-২০২১। এ নির্বাচনে ৫জন মেয়র প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন। এদের মধ্যে রাজনৈতিক দলের প্রার্থী ৪জন ও স্বতন্ত্র ১জন। রাজনৈতিক দলের প্রার্থীরা হলেন- বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মোঃ মোফাজ্জল হোসেন (নৌকা), জাতীয় পার্টি মনোনীত এস এম ওয়াহিদুল হাসান (লাঙ্গল), বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপির মোশারফ হোসেন রানা (ধানের শীষ), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মোঃ আমিনুল ইসলাম (হাত পাখা) ও স্বতন্ত্র প্রার্থী হলেন- মোঃ রেজাউল করিম স্বপন (নারিকেল গাছ)। বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনে তারা প্রত্যেকে হলফনামা দাখিল করেছেন। তাদের সংক্ষিপ্ত তথ্য নিম্নরুপ।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মোঃ মোফাজ্জল হোসেন: শিক্ষাগত যোগ্যতা এম কম, এল.এলবি। তিনি ফৌজদারী মামলায় অভিযুক্ত নন, তার বিরুদ্ধে এ যাবতকালে কোন ফৌজদারী মামলা দায়ের হয়নি। পেশা- শিক্ষকতা ও ব্যবসা, বার্ষিক আয়ের উৎস- কৃষিখাতে ১২হাজার টাকা, ব্যবসায় ৪লাখ ৭০হাজার ৬শত ৭৫টাকা ও পেশা (শিক্ষকতা) ৫লাখ ১৫হাজার ৫৩টাকা। অস্থাবর সম্পত্তি- নগদ ২লাখ টাকা, ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে জমা রয়েছে ১লাখ ৪৩হাজার ৬শত ৪৪টাকা, একটি মোটর সাইকেল,

উপহার হিসেবে প্রাপ্ত স্বর্ণ ও মূল্যবান ধাতুর অলঙ্কারাদি ১০ভরি। স্থাবর সম্পত্তি- পৈত্রিক সূত্রে কৃষি জমি রয়েছে ৪৮শতক, অকৃষি জমি ৫শতক, একটি বাড়ি বা এপার্টমেন্ট রয়েছে যার মূল্য ১২লাখ টাকা। এবি ব্যাংকে তার নামে কনজুমার লোন রয়েছে ১০লাখ টাকা। জাতীয় পার্টির মনোনীত প্রার্থী এস এম ওয়াহিদুল হাসান: শিক্ষাগত যোগ্যতা বিএসএস। বর্তমানে তার বিরুদ্ধে কোন ফৌজদারী মামলা নাই।

অতীতে তার বিরুদ্ধে ১টি ফৌজদারী মামলা দায়ের হয়েছিল। বার্ষিক আয়ের উৎস- ব্যবসা খাতে ৩লাখ ৩০হাজার টাকা। অস্থাবর সম্পত্তি- নগদ টাকা ৫লাখ ও স্ত্রীর নামে ১লাখ। ইসলামী ব্যাংকে জমা রয়েছে ৫০হাজার, একটি মোটর সাইকেল ও বিবাহকালীন উপহার হিসেবে প্রাপ্ত ৫ভরি স্বর্ণালংকার। এছাড়াও রয়েছে ইলেক্ট্রনিক সামগ্রী, আসবাবপত্র ও মোবাইল ফোন। স্থাবর সম্পত্তি- অকৃষি জমি যৌথ মালিকানায় ০.০৮একর যাতে তার অংশ রয়েছে ২৫% এবং নির্মাণাধীন ৩তলা আবাসিক ভবনে রয়েছে ২৫%।

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপির মনোনীত প্রার্থী মোশারফ হোসেন রানা: শিক্ষাগত যোগ্যতা এসএসসি, বর্তমানে তার বিরুদ্ধে ফৌজদারী মামলা নাই। এ যাবতকালে তার বিরুদ্ধে ফৌজদারী আইনে ১টি মামলা হয়েছে, যা স্থগিত রয়েছে। বার্ষিক আয়ের উৎস- কৃষি খাতে ৭০হাজার ৯শত টাকা, বাড়ি-এর্পার্টমেন্ট বা অন্যান্য ভাড়া বাবদ ৪লাখ ১০হাজার ৪শত টাকা, ব্যবসা থেকে ১লাখ ৭৪হাজার টাকা এবং স্ত্রীর আয় ২লাখ ১৩হাজার ৭শত ৮০টাকা। অস্থাবর সম্পত্তি- নগদ টাকা ৫০হাজার টাকা ও তার স্ত্রীর ২০হাজার টাকা ।

ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে জমাকৃত অর্থের পরিমাণ ইসলামী ব্যাংকে ৭লাখ ২৬হাজার ৬শত টাকা ও স্ত্রীর ১লাখ ৯৬হাজার ৬শত ৫৩টাকা। তিনি বিভিন্ন খাতে বিনিয়োগ করেছেন ২লাখ টাকা, বিবাহকালীন উপহার হিসেবে প্রাপ্ত স্বর্ণ ও অন্যান্য মূল্যবান ধাতু ও পাথর নির্মিত অলঙ্কারাদি ২৫ভরি। স্থাবর সম্পত্তি- নিজ নামে কৃষি জমি ৩.৩০একর, যৌথ মালিকানায় ২৩.০১একর, যৌথ মালিকানার ক্ষেত্রে তার অংশ হিসেবে ৯.৯০একর। দালান, আবাসিক/ বাণিজ্যিক ৩তলা বিশিষ্ট ভবন যা ০.২৫একরের মধ্যে বাড়ির অংশ ৫০% এবং বিভিন্ন খামারে ১.৫একর। লালমনিরহাট সোনালী ব্যাংকে সিসি ঋণ রয়েছে ১০লাখ টাকা।

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ মনোনীত প্রার্থী মোঃ আমিনুল ইসলাম: স্ব-শিক্ষিত। তার বিরুদ্ধে কোন মামলা নাই। বার্ষিক আয়ের উৎস- ব্যবসা থেকে ২লাখ ৮০হাজার। অস্থাবর সম্পত্তি- ৫ভরি স্বর্ণ। তার কোন স্থাবর সম্পত্তির উল্লেখ নাই এবং তার নামে কোন ঋণ নাই। স্বতন্ত্র প্রার্থী মোঃ রেজাউল করিম স্বপন: শিক্ষাগত যোগ্যতা স্নাতক (সম্মান)। বর্তমানে তার বিরুদ্ধে কোন ফৌজদারী মামলা নাই। অতীতে তার বিরুদ্ধে ২টি মামলা হয়েছিলো।

বর্তমানে মামলা দুটিতে তিনি খালাস প্রাপ্ত। বার্ষিক আয়ের উৎস- কৃষি খাত থেকে ৫০হাজার টাকা, প্রার্থীর উপর নির্ভরশীলদের আয় ১লাখ ৫হাজার টাকা, ব্যবসা থেকে ৩২লাখ ৮৪হাজার ৭শত ৩৪টাকা এবং পারিবারিক অনুষ্ঠানে উপহার হিসেবে প্রাপ্ত ২২হাজার ৮শত ৫৯টাকা। অস্থাবর সম্পত্তি- নগদ ৩কোটি ৬৬লাখ ১হাজার ১শত ৬৯টাকা ও স্ত্রীর নামে ৫৩লাখ ১হাজার ৫শত ১৭টাকা। বিনিয়োগ করেছেন তার নিজ নামে ৩লাখ ৬৫হাজার ১শত ৪৭টাকা ও স্ত্রীর নামে ৬লাখ ২৭হাজার ১১টাকা। মোটরযান রয়েছে ২২লাখ ২০হাজার টাকার। নিজ নামে স্বর্ণালংকার রয়েছে ১০ভরি ও স্ত্রীর নামে ৩৭ভরি। ইলেকট্রনিক সামগ্রী রয়েছে ৪লাখ ৫০টাকার।

স্থাবর সম্পত্তি- নিজ নামে ২.৭৪একর কৃষি জমি যার মূল্য ৪৩লাখ ২১হাজার ৩শত টাকা। স্বামী- স্ত্রীর নামে ১.৮৭একর জমি রয়েছে যার মূল্য ২৩লাখ ৬৮হাজার ৩শত টাকা। এছাড়াও অকৃষি জমি রয়েছে যার মূল্য ৬৩লাখ ৮৬হাজার ৬শত টাকা। দালান, আবাসিক, বাণিজ্যিক, ইট ভাটা রয়েছে যার মূল্য ৬লাখ ৮৩হাজার ৩৩টাকা। গরুর খামার ৩৫লাখ টাকার। ঋণ রয়েছে ইসলামী ব্যাংকে মেসার্স অন্ত এন্টারপ্রাইজ নামে ৩৫লাখ টাকা ও মেসার্স মডার্ণ রাইস মিল নামে ১কোটি ৩৫লাখ টাকা। এছাড়াও পূর্বালী ব্যাংকে জারা ট্রেডলিং নামে ঋণ রয়েছে ১কোটি টাকা।