কবি শাহজাহান সিরাজ সবুজ- এর কবিতা “শূধুই অশ্লীল”

শুধুই অশ্লীল!
[শাহজাহান সিরাজ সবুজ]
তোমার কাজল কালো চোখে,
বিলীন হতে চাই না আর আমি,
মনের লেনাদেনা হয়েছে অনেক,
আজ শরীরটা খুবই দরকার!
শরীর চলে যায় শরীর থেকে বহুদূরে,
আবার ফিরে আসে শরীরের টানে!
কামড়ে-খামচে গোগ্রাসে খাবে বলে,
রঙিন মুখোশের আড়ালে!
তোমার কোমল জননেন্দ্রিয়,
তোমার মধুকূপে ঘাসের মতো লোম,
কিছুটা বাদামি, কিছুটা কালো,
আমার নিঃশ্বাস পড়ে দ্রুত,
বড়ো ঘাম হয়, তৃষ্ণাত্ব মন,
চোখে-মুখে তীব্র কামনার আসক্তি!
ঠোঁটে-মুখে রক্তিম চুম্বন,
শিশ্নের উত্থান, নয় ভালোবাসা!
সবাই যখন রসের কাঙাল,
তাতে আমার কিসের দোষ?
আদি থেকে অন্ত সবাই খোঁজে,
শরীরের ভাজে ভাজে আদিম সুখ,
আমি খুঁজলে দোষ কি?
যদিও আমার ক্ষুদা লাগেনি,
কিন্তু চাইতে কিসের এতো লাজ?
আমিও আদিম স্বাদ নিতে চাই,
দাম কমবার তরে।
সস্তায় পেলে সব পুরুষ-ই চায়,
সব পুরুষেই মিল!
সেই কথাগুলো কবিতায় এলে
কবি শুধুই অশ্লীল!
চারদিকে জেগে উঠেছে ‘করোনা’,
এর কাছে এটম বোমা কিছু না !
মানুষ মরছে, মানুষ বেঁচে আছে,
এরপরও মানুষ প্রকৃতির নিয়মে,
বিপরীত লিঙ্গে আকর্ষিত হচ্ছে!
মেয়েদের পাছা দুলানী দেখছে!
স্তনে দাঁত, নখের আঁচড়, ঊরুর শীৎকার!
তোমার হৃদয় ও শরীরের ভাষ্যে,
নিঃশেষে নতজানু আমি!
মনে মনে সব পুরুষের চাওয়া,
সবচে সুন্দরী মেয়ে টেনে নেবে তাকে,
সারারাত ওই সৌন্দর্যের দেবী,
উঞ্চ আলিঙ্গনে ভরিয়ে দেবে দেহমন!
আমি কবি, আমি শিল্পী তাই
আদিম, অতি প্রাচীন বিলাসের মতো,
আদি-অনাদি, অকৃত্রিম
অগাধ স্তনযুগলের বন্দনা করি!
নারীর সুপুষ্ট স্তনযুগল বিলাসেই
কবি’র কবিতা!
তোমরা ভাবতে পারো কবি অশ্লীল!
নারীর সুপুষ্ট স্তনবিলাসেই
রক্তবীর্য, স্নায়ুঘাত, লৌহপেশী
উদ্দাম পুরুষকার স্তনেই উজ্জীবিত!
স্তনের পরতে পরতে পুরুষের মৃত্যু!
স্তনের বোটায় মৃগনাভীর সুগন্ধের পসরা।
তোমার স্তনের দুলুনিতে কেপে উঠে ধরনী!
স্তনযুগল খোলা আদিম থাকার সময়,
আদিম নেশায় পাগল হয়ে যাই।
প্রথম কার ঠোঁটে চুমু খেয়েছি,
কবে কাঁচা আম নুন লঙ্কা খেয়েছি,
কবে যৌবনের প্রথম মিথুন ঘটিয়েছিলাম,
সত্যি বলছি, কিছুই মনে নেই…
যা কিছু আমার মনে নেই, তাই হলো সুখ!
আহ ! সে কি সুখ…