শাহজাদপুরে জঙ্গি আস্তানায় র‌্যাবের অভিযান জেএমবি’র ৪ সদস্য আটক

হুমায়ুন কবির সুমন, সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি : সিরাজগঞ্জ র‌্যাব-১২ সদস্যরা শুক্রবার (২০নভেম্বর) সকালে শাহজাদপুর পৌর এলাকার শেরখালী উকিলপাড়া মহল্লার একটি বাড়ীতে গড়ে ওঠা জঙ্গি আস্তানায় অভিযান চালিয়ে জেএমবি’র ৪ সদস্যকে আটক করেছে।

এসময় ওই বাড়ী থেকে ২টি বিদেশী পিস্তল, গুলির খোসা, গান পাউডার, বোমা তৈরীর ডেটোনেটর, লোহার স্প্রিন্টার, জিহাদী বই সহ জঙ্গি প্রশিক্ষণের বিভিন্ন সরঞ্জামাদি উদ্ধার করা হয়। আটককৃতরা হলো জেএমবি’র উত্তরাঞ্চলের আঞ্চলিক কমান্ডার মাহমুদের সেকেন্ড ইন কমান্ড কিরণ ওরফে শামিম ওরফে হামিম (২২), পাবনার সাঁথিয়ার নাঈমুল ইসলাম (২২), দিনাজপুরের আতিয়ার রহমান ওরফে কলম সৈনিক (৩৩), সাতক্ষিরার আমিনুল ইসলাম শান্ত (২২)। অভিযান চলাকালে জেএমবি সদস্যরা ৪/৫ রাউন্ড ফাঁকা গুলি বর্ষণ করে।

গতকাল ঘটনাস্থল ঘুরে জানা গেছে, ২৪ দিন আগে জঙ্গিরা নিজেদেরকে তাবলীগ জামায়েতের অনুসারীর পরিচয় দিয়ে শাহজাপুর পৌর এলাকার শেরখালী উকিলপাড়ার বগুড়ায় চাকরীরত সাব-এ্যাসিষ্ট্যান্ট ইঞ্জিনিয়ার (শিক্ষা) শামসুল হক রাজা বাড়ীতে ভাড়াটিয়া হিসেবে বসবাস করতে থাকে। এক পর্যায়ে গোপন সূত্রে খবর পেয়ে র‌্যাব সদস্যরা শুক্রবার ভোর ৪ টার দিকে গোটা এলাকা ঘিরে ফেলে এবং জঙ্গি আত্মসমর্পন করার জন্য সময় বেঁধে দেন। শ্বাসরুদ্ধকর অভিযানের প্রায় ৬ ঘন্টা পর ৪ জঙ্গি আত্মসমর্পন করে।

খবর পেয়ে ঢাকা থেকে হেলিকপ্টার যোগে র‌্যাবের উর্ধতন কর্মকর্তারা শাহজাদপুরে আসেন। জঙ্গিদের আত্মসমর্পনের পর বেলা ১১ টার দিকে র‌্যাবের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অপারেশন) কর্ণেল তোফায়েল মোস্তফা সরোয়ার সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে জানান, আগেরদিন বৃহস্পতিবার রাত ১১ টায় রাজশাহী শাহ মখদুম এলাকায় জেএমবি’র রাজশাহী বিভাগীয় আঞ্চলিক সভা চলাকালে র‌্যাব-৫ এর সদস্যরা অভিযান চালিয়ে ঘটনাস্থল থেকে
রাজশাহী বিভাগীয় আঞ্চলিক কমান্ডার মাহমুদ ওরফে জুয়েল (২৪) সহ চারজন জেএমবি সদস্যকে গ্রেফতার করে।

তাদের দেয়া তথ্য মতে, এদিন ভোর ৪ টায় শাহজাদপুরের শেরখালী উকিলপাড়া অস্থায়ী ওই আস্তানাটির চতুর্দিক প্রায় দেড়‘শ র‌্যাব সদস্য ঘিরে ফেলে। তিনি আরও জানান, র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে জঙ্গিরা ৪ থেকে ৫ রাউন্ড গুলি বর্ষণ করে। এ সময় র‌্যাব সদস্যরা বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করে জঙ্গিদের আত্মসমর্পনের আহবান
জানান। এক পর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে ৪ জঙ্গি আত্মসমর্পন করে। আটক জঙ্গিরা নিজেদেরকে জেএমবি’র সদস্য বলে পরিচয় দেয়। সাংবাদিকদের কাছে ব্রিফিংকালে কর্ণেল তোফায়েল মোস্তফা সরোয়ার জানান, ওই আস্তানা থেকে ২টি বিদেশী গুলি ভরা পিস্তল, গুলির খোসা, গান পাউডার,

বোমা তৈরীর ডেটোনেটর, লোহার স্প্রিন্টার, জিহাদী বই, পতাকা, ১টি চাপাতি, ২টি রামদা, জঙ্গি প্রশিক্ষণের বিভিন্ন সরঞ্জামাদি উদ্ধার করা হয়েছে। সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, শাহজাদপুরে ২৪ দিন আগে ভাড়া নেয়া বাসায় অবস্থান নিয়ে তাবলীগ জামায়েতের অন্তরালে জেএমবি সদস্যরা জঙ্গি তৎপরতা চালানোর চেষ্টা করছিল।

মুলতঃ এই অস্থায়ী আস্তানায় জেএমবি সদস্যদের প্রশিক্ষণ কার্যক্রম এবং তাদের আদর্শগত কার্যক্রম চলে আসছিল। তিনি জানান, উত্তরাঞ্চলের কিছু কিছু স্থানে জঙ্গিদের অবস্থানের সন্ধান পাওয়ার সাথে সাথেই আমরা সেখানে অভিযান চালাচ্ছি। কোন ভাবেই দেশে জঙ্গি ও সন্ত্রাসীদের ঘাঁটি গড়তে দেয়া হবে না। অভিযান চলাকালে বোম ডিসপোজাল ইউনিটসহ র‌্যাবের উর্ধতন কর্মকর্তা ও শাহজাদপুর থানা পুলিশের কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
র‌্যাবের এ অভিযানকালে এলাকাবাসীর মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়লেও জঙ্গিরা গ্রেফতার হওয়ার পর সবার মধ্যে স্বস্তি ফিরে আসে। রক্তপাতহীন সফল এ অভিযানকে স্বাগত জানিয়ে র‌্যাবসহ আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে অভিনন্দন জানিয়েছে এলাকাবাসী।