ভৈরবে পৃথক অভিযানে ২ গাঁজা ব্যবসায়ী আটক। ট্রাক ও পিকআপ ভ্যান জব্দ

এম আর ওয়াসিম, ভৈরব(কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ করোনা মহামারীতেও থেমে নেই মাদক সিন্ডিকেট চক্রের মাদক ব্যবসা। প্রতিনিয়ত চক্রটি ব্যবহার করছে নতুন নতুন কৌশল। কিন্তু থেমে নেই ভৈরব র‍্যাব-১৪ এর তৎপরতা। কোন কৌশলই ব্যবহার করে পার পাচ্ছে না মাদক চক্র। মাদক উদ্ধারে রয়েছে র‍্যাবের নিরলস প্রচেষ্টা। এরই ধারাবাহিকতায় কিশোরগঞ্জের ভৈরবে
পৃথক অভিযানে পৌর এলাকার চন্ডিবের ফেরিঘাট থেকে ১২ কেজি গাঁজা ১ ট্রাক ও ১ টি পিকআপ ভ্যান‘সহ ০২ মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে র‍্যাব-১৪, সিপিসি-৩, ভৈরব ক্যাম্প।

র‍্যাব সূত্রে জানা যায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারে যে, কতিপয় মাদক ব্যবসায়ী চক্র নিয়মিত হবিগঞ্জ জেলার শায়েস্তাগঞ্জ এলাকা থেকে মাদকদ্রব্য সংগ্রহ করে ট্রাক ও পিকআপ যোগে ভৈরবের ফেরিঘাট এলাকায় এনে দেশের বিভিন্ন জেলায় পাইকারি ও খুচরা বিক্রয় করে থাকে। উক্ত তথ্যের সত্যতা যাচাইয়ের জন্য উক্ত মাদক ব্যবসায়ী চক্রের উপর র‍্যাবের নিরবিচ্ছিন্ন গোয়েন্দা নজরদারী চালানো হলে ঘটনার সত্যতা পায় যায়।

এরই প্রেক্ষিতে ভৈরব র‍্যাব ক্যাম্পের কোম্পানী অধিনায়ক অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রফিউদ্দীন মোহাম্মদ যোবায়ের এবং স্কোয়াড কমান্ডার চন্দন দেবনাথ এর নেতৃত্বে একটি আভিযানিক দল আজ ২১ জুন শনিবার সকাল সাড়ে ১০ ফেরিঘাট অভিযান পরিচালনা করে ১ টি ট্রাকে তল্লাশী করে ৮ কেজি গাঁজাসহ আবদুল খালেক (৪০) নামে ১ জন কে আটক করা হয়। আটককৃত খালেক মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল থানা কালাপুর গ্রামের মৃত এরশাদ মিয়ার পুত্র বলে জানা যায়।

পরে আবার অভিযান পরিচালনা করে পিকআপ ভ্যান তল্লাশী করে তারা মিয়া (২৫) নামে ১ যুবককে ৪ কেজি গাঁজা সহ আটক করা হয়। আটককৃত তারা মিয়া ভৈরবের গজারিয়া ইউনিয়নের মানিকদী গ্রামের শুনু মিয়ার পুত্র বলে জানা যায়।

মোট ১২ কেজি গাঁজা উদ্ধার করা হয়। মাদক পরিবহনে গাড়ি ২ দুটি জব্দ করা হয়। উদ্ধারকৃত আলামতের আনুমানিক মূল্য ৩৩,৬০,০০০টাকা। ধৃত আসামীদের বিরুদ্ধে জেলার ভৈরব থানায় পৃথক পৃথক মামলা দায়ের প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।