JavaScript must be enabled in order for you to see "WP Copy Data Protect" effect. However, it seems JavaScript is either disabled or not supported by your browser. To see full result of "WP Copy Data Protector", enable JavaScript by changing your browser options, then try again.
সংবাদ শিরোনাম:

আর্ন্তজাতিক নারী নির্যাতন প্রতিরোধ পক্ষ – ২০১৮

আওয়াজ অনলাইনঃ  আজ আর্ন্তজাতিক নারী নির্যাতন প্রতিরোধ পক্ষের একটি দিন । বাংলাদেশে দিবসটি পালনের মূল উদ্দেশ্য নারী ও কন্যা শিশুর প্রতি সকল প্রকার সহিংসতা প্রতিরোধে নারী-পুরুষ এক হওয়া । বাংলাদেশ আজ উন্নয়নশীল দেশ থেকে মধ্যম আয়ের দেশে পরিনত হতে যাচ্ছে তার অন্তরালে খুটিয়ে দেখলে দেখা যায় বাংলাদেশে নারীর অবদান কোন অংশে কম না । বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের দেশে পরিনত করতে এবং এই উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে ধরে রাখতে হলে পুরুষের পাশাপাশি নারীকে দিতে হবে সমমর্যাদা।

এই দিবসকে সামনে রেখে আওয়াজ ফাউন্ডেশনের আয়োজনে, যথাযথ মর্যাদায় আর্ন্তজাতিক নারী নির্যাতন প্রতিরোধ পক্ষ পালনের উদ্যোগ গ্রহণ করে। অদ্য ০৮/১২/২০১৮ ইং রোজ শনিবার, বিকাল ৩.০০ ঘটিকায় বায়োজিদ বোস্তামী, বায়তুল করম প্লাজার ৩য় তলায় এক আলোচনা সভা ও জেন্ডার ভিত্তিক সহিংসতার উপর ছবি আকা, কবিতা ও গান লিখার প্রতিযোগীতার পুরস্কার বিতরণ করা হয়েছে।

আলোচনা সভা অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন মমতাজ বেগম, সভাপতি, আওয়াজ ফাউন্ডেশন। তিনি বলেন, আমাদের নারীদের অধিকার নিজেদের আদায় করে নিতে হবে। যেখানেই দেখব নির্যাতন সেখানেই হবে প্রতিবাদ এই প্রত্যয় নিয়ে সামনে এগিয়ে আসতে হবে। প্রতিটি ট্রেড ইউনিয়নের উচিত নিজেদের দাবি আদায়ে যেমন একত্রিত হতে হয় তেমন কারখানার মধ্যেকার সহিংসতা বন্ধের জন্য এক হতে হবে।

আওয়াজ ফাউন্ডেশন এর জেন্ডার ভিত্তিক সহিংসতা প্রকল্পের প্রকল্প কর্মকর্তা আঁখি আক্তার বলেন-নারী সাধরনত শারীরিক, মানসিক, যৌন, অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক সহিংসতার শিকার হয়ে থাকেন। এই নির্যাতন শূধুমাত্র পারিবারিক পরিসরে নয় সর্বক্ষেত্রে বিরাজমান যা সমাজেরই অবক্ষয়। দেশে নারীর প্রতি সহিংসতার মূলে আছে মনুষ্যত্ব, পিতৃতন্ত্র ও বৈষম্যমূলক আইন। রাষ্ট্র আপসহীন এবং নারী নির্যাতনের বিরুদ্ধে “জিরো টলারেন্স” নীতি না নিলে সমাজের ভেতরের এই অবক্ষয়ের বিরুদ্ধে রুখে দাড়ানো যাবে না। আসুন নারী-পুরুষ সমমর্যাদার ভিত্তিতে সমতার দাবি জোরদার করি।

আলহাজ মো: সাহেদ ইকবাল বাবু, কাউন্সিলর, ২নং ওয়ার্ড জালালাবাদ ওয়ার্ড বলেন- নারীদের নিরাপত্তা দিতে হবে, গার্মেন্টস এর মেয়েরা অনেক রাতে ছুটি হলে তাদের নিরাপদে বাসায় যাওয়ার ব্যবস্থা করতে হবে। তা না হলে তারা সহিংসতার শিকার হবে। এর দায় আমাদের সবার। তাই নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধে কাজ করতে হবে সর্বক্ষেত্রে। যুব সমাজ কাজ করবে দায়িত্ব মনে করে।

কামরুন নাহার শম্পা, বিভাগীয় প্রোগ্রাম কর্মকর্তা, কনজিউমার এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ বলেন- নারী তুমি অন্ধকারে মুখ লুকিয়ে থাকার দিন নয়। এখন নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে হবে মাসুষ হিসেবে। আমরা নারী তাই আমরাই অনেক কিছু পারি চাই একটু সহযোগীতা । নারী পুরুষ একসাথে কাধে কাধ মিলিয়ে কাজ করতে হবে সর্বত্র।

মো: শামসুল হক, ম্যানেজার (ইএচএইচ), ক্লিফটন টেক্সটাইল এন্ড এ্যাপারেলস লিঃ বলেন- নারীর প্রতি আমাদের মনমানসিকতা পরিবর্তন করতে হবে। যদি এই মানসিকতা পরিবর্তন না হয় তবে সহিংসতা শেষ হবে না।
কামরুন নাহার, এসি. ম্যানেজার (এইচ আর এন্ড কম.) ক্লিফটন এ্যাপারেলস লিঃ বলেন- নারীর প্রতি সহিংসতার মাত্রা এখন নতুন রুপ নিয়েছে। আগে সহিংসতা হত একরকম এখন হয় ডিজিটাল কায়দায়। এই সহিংসতা কমাতে চাই নারীর অধিকার প্রতিষ্ঠা।

সংবাদ পড়ুন, লাইক দিন এবং শেয়ার করুন

Comments

comments

About গণমানুষের আওয়াজ.কম

x

Check Also

হরিপুরে সম্ভাব্য মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী প্রভাষক সুমি

জে.ইতি হরিপুর ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি: আসন্ন হরিপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মহিলা আসনে সম্ভাব্য মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ...

error: Content is protected !!