JavaScript must be enabled in order for you to see "WP Copy Data Protect" effect. However, it seems JavaScript is either disabled or not supported by your browser. To see full result of "WP Copy Data Protector", enable JavaScript by changing your browser options, then try again.
সংবাদ শিরোনাম:

আলফাডাঙ্গায় শহীদ মুক্তিযোদ্ধা নামের বিদ্যালয়টি বড় অবহেলিত

মিয়া রাকিবুল,আলফাডাঙ্গা প্রতিনিধিঃ প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ভরপুর সবুজ শ্যামল পরিবেশের বিদ্যালয় খুব কমই দেখা যায়। পড়াশোনার সুষ্ঠু পরিবেশ, কর্তৃপক্ষের মাতৃসুলভ আচরণ শিক্ষক, শিক্ষিকা ও শিক্ষার্থীদের মধ্যে বন্ধূত্বপূর্ণ সম্পর্কের মধ্য দিয়ে পরিচালিত হচ্ছে শহীদ মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতি বিদ্যাপীঠ।
বিদ্যালয়ের মনোরম পরিবেশ যে কারো নজড় কাড়তে সক্ষম হলেও শহীদ মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতি নামের এই বিদ্যাপীঠ বড়ই অবহেলিত। ভাঙ্গা টিনশেড ঘর, আসবাবপত্রের অভাবসহ নানা সমস্যায় বিদ্যালয়টি জর্জরিত। শিক্ষক-শিক্ষিকারা অক্লান্ত পরিশ্রমে পাঠদান অব্যাহত থাকলেও জাতীয়করণ না হওয়ায় দীর্ঘ ২ বছরেরও অধিককাল থেকে শিক্ষকরা বেতন ভাতা থেকে বঞ্চিত।
সরজমিনে দেখা যায়, ফরিদপুর জেলার আলফাডাঙ্গা উপজেলার মধুমতি নদীর চরে টিটা গ্রাম।এ গ্রামে ১৯৯৮ সালে জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের স্মরণে স্থাপিত হয় শহীদ মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতি বিদ্যাপীঠ।কিন্তু ২০ বছরেও এবিদ্যালয়ে উন্নয়নের কোন ছোঁয়া পায়নি।
প্রাকৃতিক নয়নাভিরাম পরিবেশে সবুজের সমারোহ মাঠের এক প্রান্তে নিরিবিলি পরিবেশে একটি টিনশেড ঘরে বিদ্যালয়টিতে পাঠদান চললেও বিদ্যালয়টির সম্মুখে বিরাট একটি খেলার মাঠ শিক্ষার্থীদের বাড়তি সুবিধা দিচ্ছে। বিদ্যালয়টির ভেতরে ঢুকে দেখা যায়, বেঞ্চ, চেয়ার-টেবিলসহ আসবাবপত্রের পর্যাপ্ত অভাব রয়েছে।
জানা যায়, বর্তমানে প্রতিষ্ঠানটিতে ১১জন শিক্ষক ও ৬ষ্ঠ থেকে ৮ম শ্রেণিতে দুই শতাধিক শিক্ষার্থী রয়েছে।ভৌগলিক দিক দিয়ে বিদ্যালয়টির অবস্থান একটি দ্বীপের উপর।আর এই দ্বীপে ৪/৫ গ্রাম মানুষের বসবাস। তাই ৪/৫ গ্রাম মানুষের জুনিয়র শিক্ষা লাভের একমাত্র ভরসা এই প্রতিষ্ঠানটি।
বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণির ছাত্রী অনন্যা খানম বলেন, ‘বৃষ্টির সময় আমরা ঠিকমতো ক্লাস করতে পারিনা,ভাঙ্গা টিন দিয়ে পানি পড়ে সবকিছু ভিজে যায়’। ৭ম শ্রেণির ছাত্রী তাহছিনা খানম বলেন, ‘জায়গার অভাবে ক্লাস করতে খুব কষ্ট হয়, এক বেঞ্চে ৬/৭ জন করে বসতে হয়’।
বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ইসানুর মিয়া জানান, আমরা জায়গার অভাবে শিক্ষার্থীদের ঠিকমতো বসতে দিতে পারিনা।তিনি আরও বলেন, বিদ্যালয়টি এখনও রেজিষ্ট্রিভূক্ত না হওয়ায় তারা বেতন ভাতা পাচ্ছেন না। যে কারণে শিক্ষক শিক্ষিকারা এক প্রকার মানবেতর জীবন যাপন করছেন।
উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার সিদ্দিকুর রহমান মিয়া জানান, শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের নামের এই বিদ্যালয় আজও অবহেলিত।অথচ ঐতিহ্যবাহী এ প্রতিষ্ঠানের উন্নয়ন কিংবা জাতীয়করণে কারও কোনো দৃষ্টি নেই।আমরা মুক্তিযোদ্ধা বান্ধব সরকার মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের নামে স্থাপিত এই বিদ্যালয়টির অবকাঠামো উন্নয়ন ও জাতীয়করণের ঘোষণা চাই।

Comments

comments

About আওয়াজ অনলাইন

x

Check Also

ঠাকুরগাঁওয়ে কলেজছাত্রীকে মারপিট

মোঃ ইসলাম ঠাকুরগাঁও জেলা প্রতিনিধি :  ঠাকুরগাঁও শহরের গোয়ালপাড়া এলাকায় কলেজছাত্রী রুবি আক্তারকে কে মারপিট ...

error: Content is protected !!