JavaScript must be enabled in order for you to see "WP Copy Data Protect" effect. However, it seems JavaScript is either disabled or not supported by your browser. To see full result of "WP Copy Data Protector", enable JavaScript by changing your browser options, then try again.
Home / অন্যরকম / নারায়ণগঞ্জে বোমা ট্রাজিডির সতের বছরেও বিচার পায়নি স্বজনরা
নারায়ণগঞ্জে বোমা ট্রাজিডির সতের বছরেও বিচার পায়নি স্বজনরা

নারায়ণগঞ্জে বোমা ট্রাজিডির সতের বছরেও বিচার পায়নি স্বজনরা

মোঃ কবির হোসেন, নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি:
নারায়ণগঞ্জে আওয়ামীলীগ অফিসে বোমা হামলা ১৬ বছর অতিবাহিত হলেও আজও বিচার পায়নি নিগতের স্বজনরা। ২০০১ সালের ১৬ জনু শহরের  প্রাণকেন্দ্র চাষাঢ়ায় আওয়ামীলীগ অফিসে নৃশংস বোমা হামলার ঘটনা ঘটে। এ হামলায় আওয়ামীলীগ, ছাত্রলীগ ও মহিলাসহ ২০ জন নিহত হয়। আহত হয় তৎকালিন ও বর্তমান সংসদ সদস্য শামীম ওসমানসহ শতাধিক নেতাকর্মী। ঘটনার ১৬ বছর পেড়িয়ে গেলেও এখনো এ হত্যাকান্ডের বিচার হয়নি। প্রাণে বেঁচে যাওয়া আহতরা পঙ্গুত্বের অভিশাপ নিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারগুলো দিন কাটাচ্ছে অর্থ সংকটে। আজও এ নারকীয়  হত্যাযজ্ঞের বিচার সম্পন্ন না হওয়ায় চরম ক্ষোভ ও হতাশা বিরাজ করছে নিহতদের পরিবারের স্বজনদের মধ্যে। ২০০১ সালের ১৬ জুন চাষাঢ়া বিজয় স্তম্ভের পাশে আওয়ামীলীগ অফিসে শক্তিশালী বোমা হামলায় ৪ নারীসহ ২০ জন প্রাণ হারায়। আহত হয় তৎকালিন সংসদ সদস্য শামীম ওসমানসহ অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী। অনেকেই চিরতরে পঙ্গুত্ব বরণ করে। বোমা হামলার ঘটনার পরদিনই শহর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট খোকন সাহা বাদী হয়ে বিএনপি নেতাকর্মীদের আসামী করে হত্যা এবং বিস্ফোরক আইনে পৃথক দু’টি মামলা দায়ের করেন। চারদলীয় জোট সরকার ক্ষমতায় আসার পর মামলার তদন্ত কর্মকর্তা চুড়াান্ত রিপোর্ট দাখিল করেন। অন্যদিকে বোমা হামলায় নিহত ফুটপাতের পিঠা বিক্রেতা হালিমা বেগমের ছেলে কালাম বাদী হয়ে শামীম ওসমান ও তার দুই ভাইসহ অনেককে আসামী করে মামলা দায়ের করেন। পরবর্তীতে উচ্চ আদালতের নিদের্শে মামলাটি খারিজ হয়ে যায়। দীর্ঘ তদন্ত শেষে ২০০৩ সালে বিস্ফোরক মামলায় ২৭ জনকে ও ২০১৪ সলে হত্যা মামলায় তদন্তকারী সংস্থা ২২ জনকে আসামী করে আদালতে অভিযোগ পত্র দাখিল করে । এ মামলায় গ্রেফতার হয়েছে চারদলীয় জোট সরকারের উপমন্ত্রী আব্দুস সালাম পিন্টু, ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের কমিশনার আরিফুল ইসলাম, নারায়ণগঞ্জ জেলা যুবদল নেতা শাহাদাতউল্লাহ জুয়েল, হরকাতুল জিহাদ নেতা মুফতি হান্নানসহ ১০ জন। আসামীদের মধ্যে বৃটিশ হাই কমিশনারের উপর বোমা হামলার মামলায় মুফতি হান্নানের মত্যুদন্ড কার্যকর করা হয়েছে। কারাগারে রয়েছে আদালতে একমাত্র স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দেওয়া শাহাদাতউল্লাহ জুয়েল ও আব্দুস সালাম পিন্টু। ভারতে গ্রেফতার রয়েছে সহোদর আনিসুল মোরছালিন ও মাহাবুবুল মুত্তাকিম। জামিনে রয়েছে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিলর শওকত হাসেম শকু ও ওবায়দুল হক। বাকী আসামীর পলাতক রয়েছে। ১০২ জন স্বাক্ষীর মধ্যে বাদী ব্যতিত কোন স্বাক্ষীর স্বাক্ষ্য গ্রহন সম্ভব হয়নি। এতে সংশয় ও ক্ষোভ সৃস্টি হয়েছে বিচার নিয়ে । মাত্র ৩৩ মাসে ৭ খুন মামলার বিচার কাজ সম্পন্ন হলেও দীর্ঘ ১৭ বছরেও ২০ হত্যা মামলার বিচার না পাওয়া ও জামিনে থাকা আসমীদের প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়ানোতে শংকা প্রকাশ করে নিহতের স্বজনরা। এ ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্তদের সহায়তার নানা আশ্বাস দিলেও তা বাস্তসায়ন না হওয়ায় ক্ষোভ জানিয়ে দ্রুত বিচারের দাবী করেন তারা। বিভিন্ন কারনে মামলার আসামী ও স্বাক্ষীদের আদালতে হাজির করতে না পাড়ায় বিচার বিলম্বিত হচ্ছে উল্লেখ করে মামলার বাদী নিজেও বিচার নিয়ে হতাশা প্রকাশ করেন। মামলার বাদী মহানগর আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক এ্যাডভোকেট খোকন সাহা বলেন, বোমা হামলার ঘটনার দায়ের করা দু’টি মামলা এখন নারায়ণগঞ্জ অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ দ্বিতীয় আদালতে বিচারাধীন রয়েছে। আগামী ১৭ জুলাই স্বাক্ষীর জন্য দিন ধার্য্য আছে জানিয়ে পাবলিক প্রসিকিউটর বলেন এক মাসে যদি ৮০ জন স্বাক্ষীও হাজির করাযায় তবে ৬ মাসের মধ্যে বিচার কাজ সম্পন্ন হবে। আর স্বাক্ষী হাজির না হলে অপেক্ষা ছাড়া করার কিছুই নেই। জেলা ও দায়রা জজ আদালত আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) এ্যাডভোকেট ওয়াজেদ আলী খোকন বলেন, মামলার দ্র”ত বিচার নিস্পত্তি করে দোষিদের শাস্তি এবং প্রতিশ্র”তি মোতাবেক প্রধানমন্ত্রী বোমা হামলায় ক্ষতিগ্রস্তদের সহায়তা করবেন এমন প্রত্যাশা নারায়ণগঞ্জবাসীরও।

Comments

comments

About গণমানুষের আওয়াজ.কম

Scroll To Top
error: Content is protected !!