JavaScript must be enabled in order for you to see "WP Copy Data Protect" effect. However, it seems JavaScript is either disabled or not supported by your browser. To see full result of "WP Copy Data Protector", enable JavaScript by changing your browser options, then try again.
সংবাদ শিরোনাম:

এসসি ও সমমানে ১০ বোর্ডে পাসের হার ৭৭.৭৭ শতাংশ : কমেছে পাসের হার-বেড়েছে জিপিএ-৫

আওয়াজ অনলাইন : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) ও সমমানের (দাখিল ও এসএসসি-ভোকেশনাল) পরীক্ষার ফল হস্তান্তর করা হয়েছে। মাধ্যমিক ও সমমানের পরীক্ষায় এবার ৭৭ দশমিক ৭৭ শতাংশ শিক্ষার্থী পাস করেছে, যাদের মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ১ লাখ ১০ হাজার ৬২৯ জন।
গত বছর এ পরীক্ষায় ৮০ দশমিক ৩৫ শতাংশ শিক্ষার্থী পাস করেছিল, যাদের মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছিল ১ লাখ ৪ হাজার ৭৬১ জন। আজ রবিবার সকাল ১০টার দিকে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর হাতে পরীক্ষার ফলের কপি হস্তান্তর করেন। বিভিন্ন শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যানরা সেখানে উপস্থিত ছিলেন।
দুপুর ১টায় সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে মাধ্যমিক পরীক্ষার ফল ঘোষণা করেন তিনি।
গত ১ ফেব্রুয়ারি থেকে ২৫ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত এসএসসি ও সমমানের লিখিত বিষয়ের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। ব্যবহারিক পরীক্ষা ২৬ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হয়ে ৪ মার্চ শেষ হয়। এবার সারাদেশে তিন হাজার ৪১২টি কেন্দ্রে মোট ২০ লাখ ৩১ হাজার ৮৮৯ জন পরীক্ষায় অংশ নেয়।
ফল জানার উপায় : মোবাইলে এসএমএস-এর মাধ্যমে ফলাফল পাওয়ার জন্য SSC লিখে স্পেস দিয়ে বোর্ডের নামের প্রথম তিন অক্ষর লিখে স্পেস দিয়ে রোল নম্বর লিখে আবার স্পেস দিয়ে পাসের বছর লিখে পাঠাতে হবে ১৬২২২ নম্বরে। উদাহরণ: SSC DHA 123456 2018।
মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের জন্য Dakhil লিখে স্পেস দিয়ে বোর্ডের নামের প্রথম তিন অক্ষর লিখে আবার স্পেস দিয়ে রোল নম্বর লিখে স্পেস দিয়ে পাসের সন লিখে পাঠাতে হবে ১৬২২২ নম্বরে। একইভাবে এসএসসি ভোকেশনালের জন্য SSC লিখে স্পেস দিয়ে বোর্ডের নামের প্রথম তিন অক্ষর লিখে স্পেস দিয়ে রোল নম্বর লিখে স্পেস দিয়ে পাসের সন লিখে পাঠাতে হবে ১৬২২২ নম্বরে।
কলেজ ভর্তির আবেদন শুরু ১৩ মে : একাদশে ভর্তি আবেদন কার্যক্রম শুরু হবে ১৩ মে থেকে। আবেদনের শেষ সময় ২৪ মে। তবে পুনঃনিরীক্ষণে যাদের ফল পরিবর্তন হবে, তাদের আবেদন আগামী ৫ ও ৬ জুন গ্রহণ করা হবে। প্রথম পর্যায়ে নির্বাচিত শিক্ষার্থীদের ফল প্রকাশ করা হবে ১০ জুন। এরপর আরও একাধিক ধাপে ফল প্রকাশ ও মাইগ্রেশনসহ অন্য আনুষঙ্গিক কাজ শেষ করে ২৭ থেকে ৩০ জুন পর্যন্ত ভর্তি কার্যক্রম চলবে। ক্লাস শুরু হবে ১ জুলাই থেকে ।

প্রসঙ্গত, এবারও একজন শিক্ষার্থী কমপক্ষে ৫টি এবং সর্বোচ্চ ১০টি কলেজে ভর্তির জন্য আবেদন করতে পারবেন। অনলাইন এবং এসএমএস উভয় পদ্ধতিতেই আবেদন করা যাবে। একজন শিক্ষার্থী যতগুলো কলেজে আবেদন করবে, তার মধ্য থেকে গেল বছরের মতো মেধা ও পছন্দক্রমের ভিত্তিতে একটি কলেজ নির্ধারণ করে দেওয়া হবে। তবে ভর্তিতে আগের মতো এবারও স্কুল, কলেজ ও সমমানের প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে নিজ প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা অগ্রাধিকার পাবে।
দেশের ১০ শিক্ষাবোর্ডে চলতি বছরের মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট পরীক্ষা (এসএসসি) ও সমমানের পরীক্ষায় গড় পাসের হার ৭৭ দশমিক ৭৭ শতাংশ। গত বারের চেয়ে এবার পাসের হার কমেছে। গতবার পাসের হার ছিল ৮০ দশমিক ৩৫ শতাংশ।
তবে এবার গতবারের চেয়ে জিপিএ ৫ বেড়েছে। এবার মোট জিপিএ ৫ পেয়েছে ১ লাখ ১০ হাজার ৬২৯ জন শিক্ষার্থী। গতবার পেয়েছিল ১ লাখ চার হাজার ৭৬১ জন।
এবার আটটি সাধারণ শিক্ষা বোর্ডের অধীন শুধু এসএসসি পরীক্ষায় গড় পাসের হার ৭৯ দশমিক ৪০। গতবারের চেয়ে পাসের হার কিছুটা কম। গতবার এসএসসিতে পাসের হার ছিল ৮১ দশমিক ২১ শতাংশ। তবে এসএসসিতে জিপিএ ৫ গতবারের চেয়ে বেড়েছে। এবার জিপিএ ৫ পেয়েছে এক লাখ ২ হাজার ৮৪৫ জন। যা গতবারের চেয়ে চার হাজার ৮৮১ জন বেশি।
এবার পাসের হার মাদ্রাসায় ৭০ দশমিক ৮৯ শতাংশ এবং কারিগরীতে ৭১ দশমিক ৯৬ শতাংশ। ফল প্রকাশ নিয়ে সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলন করেন শিক্ষামন্ত্রী। গত ১ ফেব্রুয়ারি এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু হয়। ব্যবহারিক পরীক্ষা শেষ হয় গত ৮ মার্চ। এ বছর এসএসসি পরীক্ষায় একের পর এক প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনায় সারা দেশে তোলপাড় সৃষ্টি হয়।
প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগ যাচাই-বাছাইয়ে গঠিত আন্তমন্ত্রণালয় কমিটির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এসএসসি পরীক্ষায় ১৭টি বিষয়ের মধ্যে ১২ টিতেই নৈর্ব্যক্তিক (এমসিকিউ) অংশের ‘খ’ সেট প্রশ্নপত্র ফাঁস হয়েছে।
পাসের হারে মেয়েরা এগিয়ে : এবারের মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) ও সমমানের পরীক্ষায় ছেলেদের চেয়ে মেয়েদের পাসের হার ২.১৪ শতাংশ বেশি। এবারের এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় ১০ বোর্ডে পাস করেছে ১৫ লাখ ৭৬ হাজার ১০৪ জন শিক্ষার্থী। আর পাস করেছে ৭৭ দশমিক ৭৭ শতাংশ শিক্ষার্থী। এর মধ্যে মেয়েরা পাস করেছে ৭৮ দশমিক ৮৫ শতাংশ। আর ছেলেরা পাস করেছে ৭৬ দশমিক ৭১ শতাংশ।
রোববার সকাল ১০ টায় প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে শেখ হাসিনার কাছে আনুষ্ঠানিকভাবে ফল হস্তান্তর করেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। এবং দুপুর ২ টা থেকে শিক্ষার্থীরা ফল জানতে পারবেন।
পাসের হার কমেছে সিলেট বোর্ডে : এসএসসি পরীক্ষায় সিলেট শিক্ষা বোর্ডে পাসের হার ৭০ দশমিক ৪২ শতাংশ। যা গতবছর ছিল ৮০ দশমিক ২৬ শতাংশ। এ বোর্ডে জিপিএ ৫ পেয়েছে ৩ হাজার ১৯১ জন শিক্ষার্থী। সিলেট শিক্ষাবোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক কবির আহমেদ রবিবার দুপুরে সিলেট শিক্ষা বোর্ডের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ ফলাফল ঘোষণা করেন।
পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক কবির আহমেদ বলেন, এবছর সিলেট বোর্ডে এসএসসিতে ১ লাখ ৮ হাজার ৯২৮জন পরীক্ষার্থী অংশ নেয়। যার মধ্যে পাস করেছে ৭৬ হাজার ৭১০ জন পরীক্ষার্থী। গতবছর পাসের হার ছিল ৮০ দশমিক ২৬ শতাংশ। সে তুলনায় এ বছর পাসের হার ৯ দশমিক ৮৪ শতাংশ কমেছে। সাধারণ গণিত ও ইংরেজিতে ফলাফল খারাপ করায় এবার পরীক্ষার সার্বিক ফলাফলে পাসের হারে কিছুটা প্রভাব পড়েছে।
এবছর সিলেট বোর্ডে মেয়েদের চেয়ে ছেলেরা এগিয়ে রয়েছে। ছাত্রদের পাসের হার ৭১ দশমিক ৩৩ ও ছাত্রীদের ৬৯ দশমিক ৭১ শতাংশ। জিপিএ ৫ প্রাপ্ত ছাত্র ১ হাজার ৭১৮ ও ছাত্রী ১ হাজার ৪৭৩ জন। এ বোর্ডের অধীনে চার জেলার মধ্যে সিলেট জেলায় পাসের হার ৭৩ দশমিক ৮০ শতাংশ, হবিগঞ্জে ৭০ দশমিক ৩৪, মৌলভীবাজারে ৬৬ দশমিক ৯৯ ও সুনামগঞ্জে ৬৮ দশমিক ৫৩ শতাংশ।
এসএসসিতে কুমিল্লা বোর্ডের ফল এবার সব সূচকে ভালো : এবারের মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) পরীক্ষায় কুমিল্লা শিক্ষাবোর্ডে পাসের হার ও জিপিএ-৫ বেড়েছে। গতবারের তুলনায় এবার সব সূচকেই ফল ভালো হয়েছে । পাসের হার গতবারের তুলনায় বেড়েছে ২১ দশমিক ৩৭ ভাগ। জিপিএ-৫ বেড়েছে ২ হাজার ৪১৫। পাসের হার ও জিপিএ-৫ এ ছেলেরা এগিয়ে।
বিজ্ঞানে ছেলেরা পাসের হার ও জিপিএ-৫ এ এগিয়ে রয়েছে। ব্যবসায় শিক্ষা ও মানবিক বিভাগে মেয়েরা পাসের হারে ও জিপিএ-৫ এ এগিয়ে। শূন্যভাগ পাস করা স্কুলের সংখ্যা নেই। শতভাগ পাস করা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সংখ্যা বেড়েছে।
কুমিল্লা শিক্ষাবোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মো. আসাদুজ্জামান স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, এ বছর কুমিল্লা শিক্ষাবোর্ডের অধিভুক্ত ছয় জেলার ১ হাজার ৭০৭টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে এক লাখ ৮২ হাজার ৭১১ জন পরীক্ষায় অংশ নেয়। এর মধ্যে কৃতকার্য হয়েছে এক লাখ ৪৬ হাজার ৮৯৭ জন। এর মধ্যে ছেলে ৬৬ হাজার ৩৭ জন, মেয়ে ৮০ হাজার ৮৬০ জন। পাসের হার ৮০ দশমিক শূন্য ৪০। ছেলেদের পাসের হার ৮১ দশমিক ২৯, মেয়েদের পাসের হার ৭৯ দশমিক ৬৯। এ বছর জিপিএ-৫ পেয়েছে ৬ হাজার ৮৬৫ জন। এর মধ্যে ছেলে ৩ হাজার ৪৮৬ জন, মেয়ে ৩ হাজার ৩৭৯ জন।
এ বছর বিজ্ঞান বিভাগে ৫৪ হাজার ৮৭৯ জন পরীক্ষা দিয়ে কৃতকার্য হয় ৫১ হাজার ৭৯৫ জন। পাসের হার ৯৪ দশমিক ৩৮। এতে ছেলেদের পাসের হার ৯৪ দশমিক ৫২, মেয়েদের পাসের হার ৯৪ দশমিক ২৩। বিজ্ঞানে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৬ হাজার ৬৪৫ জন। এর মধ্যে ছেলে ৩ হাজার ৪৩২ জন, মেয়ে ৩ হাজার ২১৩ জন।
মানবিক বিভাগে ৫১ হাজার ৭৭৭ জন পরীক্ষা দিয়ে কৃতকার্য হয় ৩৫ হাজার ১৩১ জন। পাসের হার ৬৭ দশমিক ৮৫। ছেলেদের পাসের হার ৬৫ দশমিক ৫২, মেয়েদের পাসের হার ৬৮ দশমিক ৫২। মানবিকে জিপিএ-৫ পেয়েছেন ৬২ জন। এর মধ্যে ১১ জন ছেলে, ৫১ জন মেয়ে।
ব্যবসায় শিক্ষা শাখায় ৭৬ হাজার ৫৫ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে কৃতকার্য হয় ৫৯ হাজার ৯৭১ জন। পাসের হার ৭৮ দশমিক ৮৫। ছেলেদের পাসের হার ৭৬ দশমিক ৭৯, মেয়েদের পাসের হার ৮১ দশমিক ৩৬। ব্যবসায় শিক্ষা শাখায় জিপিএ-৫ পেয়েছে ১৫৮ জন। এর মধ্যে ৪৩ জন ছেলে, ১১৫ জন মেয়ে।
কুমিল্লা বোর্ডের উপপরীক্ষা নিয়ন্ত্রক (মাধ্যমিক) মো. শহিদুল ইসলাম জানান, নির্বাচনী পরীক্ষায় অনুত্তীর্ণদের সুযোগ না দেওয়া, শিক্ষার মান নিয়ে বোর্ডের মতবিনিময়সভার কারণে ফল ভালো হয়েছে। সব মহল এবার সচেতন হওয়ায় পাসের হার ও জিপিএ৫ বেড়েছে। শূন্য ভাগ পাস করা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান নেই। এবার শতভাগ পাস করা প্রতিষ্ঠান ৭৪ টি। গত বছর এ বোর্ডের পাসের হার ছিল ৫৯ দশমিক ০৩। জিপিএ-৫ পেয়েছিল ৪ হাজার ৪৫০ জন। শূন্য ভাগ পাস করা প্রতিষ্ঠান ছিল দুটি। শতভাগ পাস করা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ছিল মাত্র ১৪টি।
শতভাগ পাস করা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সংখ্যা : এ বছর কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ডের অধীনে ৭৪ টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সব শিক্ষার্থী কৃতকার্য হয়েছে। এর আগে ২০১৭ সালে ১৪টি, ২০১৬ সালে ১১৯ টি, ২০১৫ সালে ১৭৬ টি, ২০১৪ সালে ১৬৭ টি, ২০১৩ সালে ২৭৫ টি, ২০১২ সালে ১৩০টি, ২০১১ সালে ১১২টি, ২০১০ সালে ৮৫টি, ২০০৯ সালে ৪৫টি, ২০০৮ সালে ৭২টি, ২০০৭ সালে ছয়টি, ২০০৬ সালে ৩২টি, ২০০৫ সালে ১৭টি এবং ২০০৪ সালে ১০টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সবাই পাস করেছে।
বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মো. রুহুল আমিন ভূঁইয়া বলেন, ‘পাসের হার ও জিপিএ-৫ বাড়ায় সন্তোষ প্রকাশ করছি। আগামীতে শিক্ষার মান বাড়িয়ে আরও ভালো করার পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

Comments

comments

About গণমানুষের আওয়াজ.কম

x

Check Also

বিকল্পধারার নামে দল গঠন হাস্যকর-মাহী বি. চৌধুরী

আওয়াজ অনলাইনঃ বিকল্পধারার যুগ্ম মহাসচিব ও দলের মুখপাত্র মাহী বি. চৌধুরী বলেছেন, যারা বিকল্পধারার প্রেসিডেন্ট ...

error: Content is protected !!