Home » সংবাদ শিরোনাম » ভৈরব-কুলিয়ারচরের মিলন সেতুর উদ্বোধন
ভৈরব-কুলিয়ারচরের মিলন সেতুর উদ্বোধন

ভৈরব-কুলিয়ারচরের মিলন সেতুর উদ্বোধন

এম আর ওয়াসিম, ভৈরব(কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি :   দীর্ঘ কয়েক যুগের স্বপ্ন এলাকাবাসীর দাবীতে  ভৈরব-কুলিয়ারচর কালী নদীর ওপর নির্মিত প্রয়াত মহামান্য রাষ্ট্রপতি আলহাজ্ব জিল্লুর রহমান সেতুর উদ্বোধন করা হয়েছে। গতকাল ৭ অক্টোবর সোমবার বিকাল ৫টায় ভৈরব উপজেলার গজারিয়া ইউনিয়নের মানিকদী এলাকায় সেতুটি উদ্বোধন করা হয়।

প্রধান অতিথি হিসেবে কিশোরগঞ্জ-৬ (ভৈরব-কুলিয়ারচর) আসনের সাংসদ, এসিসি ও বিসিবি সভাপতি আলহাজ্ব নাজমুল হাসান পাপন প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে সেতুটির শুভ উদ্বোধন করেন। কিশোরগঞ্জ জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরীর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, ঢাকা বিভাগের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী সুশংকর চন্দ্র আচার্য্য, কুলিয়ারচর গ্রুপের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মুছা মিয়া (সিআইপি), বেক্সিমকো ফার্মা লি. এর পরিচালক সাংসদ এর (সহধর্মিনী) রোকসানা হাসান। মূখ্য আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ভৈরব উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব মো. সায়দুল্লাহ মিয়া।

 

গজারিয়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক শাহরিয়ার এর সঞ্চালনায় অন্যান্যদের মাঝে  উপস্থিত ছিলেন কুলিয়ারচর উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব ইয়াছির মিয়া, ভৈরব উপজেলা নির্বাহী অফিসার লুবনা ফারজানা, কুলিয়ারচর উপজেলা নির্বাহী অফিসার কাউসার আজিজ, ভৈরব উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. আনিসুজ্জামান, উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম সেন্টু, পৌর আওয়ামী লীগ সভাপতি এসএম বাকী বিল্লাহ, সাধারণ সম্পাদক আতিক আহমেদ সৌরভ, কুলিয়ারচর উপজেলা প্রকৌশলী মো. সামাদুল ইসলাম, ভৈরব উপজেলা প্রকৌশলী মো. ইব্রাহিম, গজারিয়া ইউনিয়ন চেয়ারম্যান গোলাম সারোয়ার, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি ফরিদ খান প্রমুখ।  ভৈরব-কুলিয়ারচরের আওয়ামীলীগ ও তার অঙ্গ সংগঠনের নেতা কর্মী ছাড়াও সর্বস্তরের জনগন উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় প্রধান অতিথি আলহাজ্ব নাজমুল হাসান পাপন বলেন, এই সেতু নির্মাণের দাবী ছিল দীর্ঘ কয়েক যুগের। আমার বাবা এই সেতু দেখে যেতে পারেননি। আমি বিদেশ গেলে লোকজন ফেসবুকে ছবি দেখে যখন বলত বাংলাদেশে কত সুন্দর ব্রিজ হয়েছে। আমি দেখে বলতাম এটা তো আমার এলাকায়। এই সেতু নির্মাণের ফলে দুই উপজেলার  হাজার হাজার মানুষ যাতায়াতের সুবিধা পাবে। সেতু না থাকায় নৌকা দিয়ে ছাত্র-ছাত্রী ও লোকজন যাতায়াত করতে গিয়ে নৌকা ডুবিতে মৃত্যুবরণ করেছে অনেক মানুষ। এই এলাকার মানুষের দীর্ঘদিনের দাবী পুরণের জন্য আমার বাবা চেষ্টা করেছেন। আজ সেই দাবী সফল হয়েছে। তিনি আরো বলেন, আগামী আওয়ামী লীগ সম্মেলনে ভৈরব-কুলিয়ারচরে দেখে শুনে নেতৃত্ব তৈরি করা হবে। ত্যাগী নেতাকর্মীদের মূল্যায়ন করে তাদের দলে রাখা হবে। সুসময়ের হাইব্রিড নেতাদের দল থেকে বাদ দিয়ে একটি সুস্থ এবং সুন্দর আওয়ামী লীগ গঠন করা হবে।

উল্লেখ্য ভৈরব-কুলিয়ারচর এই দুই উপজেলা বাসীর কয়েক যুগের স্বপ্ন বাস্তবায়নে কালী নদীর উপর ৫২০ মিটার দৈর্ঘ্য একটি সেতু নিমার্ণের পরিকল্পনা হাতে নেয়া হয়। ফলে ৭১ কোটি ১৯ লাখ টাকা ব্যয় ২০১৭ সালের মার্চ মাসে সেতুর নিমার্ণ কাজ শুরু করা হয়। দু’বছর মেয়াদী সেতুটি চলতি বছরের মার্চ মাসে নিমার্ণ কাজ শেষ হবার কথা থাকলেও নির্ধারিত সময়ের চেয়ে কিছু সময় বেশি লাগলেও সেতু নির্মাণ সম্পন্ন হওয়ায় নদীর পাড়ের বাসিন্দারা আনন্দিত ও উল্লাসিত।

নদীর পাড়ে হাজার হাজার মানুষের দাবী, এই সেতু নিমার্ণের ফলে যেমন গ্রামীণ অবকাঠামোর উন্নয়ন হয়েছে। তেমনি বাড়বে জীবনযাত্রার মান। একই সাথে গ্রামাঞ্চলে উৎপাদিত বিভিন্ন কৃষিপন্য সহজে শহরের হাট-বাজারে ন্যয্য মূল্যে বিক্রি করতে পারবে কৃষকরা। ফলে দুই উপজেলা বাসীর জন্য খুলবে নতুন দুয়ার।

BIGTheme.net • Free Website Templates - Downlaod Full Themes
Scroll Up
error: Content is protected !!