Home » মতামত » ধুনটে স্কুল মাঠে পশু হাট লাগিয়েছেন পরিচালনার কমিটির সদস্যরা শিক্ষার পরিবেশ বিপর্যয়
ধুনটে স্কুল মাঠে পশু হাট লাগিয়েছেন পরিচালনার কমিটির সদস্যরা শিক্ষার পরিবেশ বিপর্যয়

ধুনটে স্কুল মাঠে পশু হাট লাগিয়েছেন পরিচালনার কমিটির সদস্যরা শিক্ষার পরিবেশ বিপর্যয়

এম.এ রাশেদ (বগুড়া) প্রতিনিধিঃবগুড়ার ‘ধুনটের কান্তনগর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যায়ের ’খেলার মাঠ দখল করে গরু ছাগলের হাট লাগিয়েছেন স্কুল পরিচালনা কমিটির সদস্যরা । রক্ষকরা ভক্ষকের ভুমিকা নিয়ে এ অনৈতিক কাজ করার কারনে শিক্ষার পরিবেশ মারাতœক বিপর্যয় সহ নানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছে কোমলমতি শিশু শিক্ষার্থীরা।
সরজমিনে অনুসন্ধানে জানা গেছে, উপজেলার কান্তনগর এলাকার তৎকালীন শিক্ষানুরাগী ব্যক্তিবর্গের স্বেচ্ছায় দান করা ১একর ২১ শতক জমির উপর ১৯৫৩ সালে স্থাপিত হয় কান্তনগর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়। এলাকার একমাত্র শিশু শিক্ষার বতিঘর হিসাবে খ্যাত এ বিদ্যালয়টি অনেক সুনামের সাথে শিক্ষার আলো বিলিয়ে দিচ্ছে। অভিযোগ রয়েছে, কালেরপাড়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদ জি, এম ফিরোজ লিটন পাশে গ্রামের সোনামুয়া হাটের ইজারাদার ।

তিনি স্কুল পরিচালনা কমিটির সহ সভাপতি সাজেদুল হক ও অভিভাবক ক্যাটাগরিরি সভাপতি রেজাউল করিম জোয়ারদারকে টাকার বিনিময়ে ম্যানেজ করে দির্ঘদিন থেকে সোনামুয়ার পরিবর্তে কান্তনগর স্কুল মাঠে শুক্রবার ও সোমবার দুইদিন গরু ছাগলের হাট লাগিয়েছেন। স্কুল পরিচালনা কমিটির সহসভাপতি ও অভিভাবক ক্যাটাগরির সভাপতি বিদ্যলয়ের খেলার মাঠে গরু ছাগলের হাট লাগানোর কথা স্বীকার করে প্রধান শিক্ষক রফিকুল ইসলাম বলেন, বিদ্যালয়ের খেলার মঠে সপ্তাহে দুইদিন হাজার হাজার গরু ও ছাগল ক্রয় বিক্রয় হওয়ার কারনে শিশু শিক্ষার্থীদের শারীরিক শিক্ষা পিটি প্যারেড বন্দ হয়েছে।

এছাড়া গরু ছাগলের মল , মুত্র সহ নানা বর্জে স্কুলের বারান্দা সহ শ্রেনী কক্ষ নোংরা হয়ে পড়ে এবং দুর্গন্ধে স্কুল ক্যাস্পাসে থাকা দুরহ পড়েছে। অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে প্রতিদিন ক্লাস চলায় শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা নানা সংক্রামক রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। এ বিষয়ে উর্দ্ধতন কর্তপক্ষের কাছে লিখিত ভাবে নালিশ দিয়েও কোন প্রতিকার হচ্ছে না। পঞ্চম শ্রেনীর শিক্ষার্থী জয় আহমেদ,সুজন , নাজমা চতুর্থ শ্রেনীর সাধনা জানান, স্কুল মাঠে গরু ছাগলের হাট লাগানোর ফলে আমাদের প্রতিদিন অস্বাস্থ্য কর পরিবেশে লেখাপড়া করতে হচ্ছে এ ছাড়া আমাদের খেলাধুলা চিরতরে বন্ধ হয়েছে। বর্ষাকালে মাঠে কাদা পানি ও সুস্ক মৌসুমে ধুলা বালুতে এশাকার হয়।

স্কুল খেলার মাঠে গরু ছাগরের হাট লাগানোর বিষয়ে দুঃখ প্রকাশ করে নাম প্রকাশ না করার শর্তে এলাকার কয়েকজন ছাত্র অভিভাবক জানান, রক্ষক যেখানে ভক্ষকের ভুমিকায় সেখানে শিক্ষার পরিবেশ রক্ষা করবে কে? সোনামুয়া হাটের ইজারাদার জি এম ফিরোজ লিটন বলেন, স্থানীয় ভাবে ম্যানেজ করে স্কুল মাঠে গরু ছাগলের হাট লাগানো হয়েছে। স্কুল পরিচালনা কমিটির সহসভাপতি সাজেদুল হক বলেন, স্কুলের উন্নয়নের জন্য মাঠে গরু ছাগলের হাট লাগিয়েছি। অভিভাবক ক্যটাগরির সভাপতি রেজাউল করিম জোয়ারদার বলেন, শুধু স্কুল বন্ধের দিনে হাট লাগে তাতে লেখাপাড়ার কোন ক্ষতি হয় না। উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার ফেরদৌসী বেগম বলেন, আমি এ কর্মস্থলে নতুন যোগদান করেছি।

বিষয়টি আামার জানা ছিল না। কান্তনগর স্কুল মাঠে গরু ছাগলের হাট অপসারন করতে জেলা শিক্ষা অফিসারের সাথে পরামর্শ করে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার রাজিয়া সুলতানা বলেন, কান্তনগর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের খেলার মাঠে গরু ছাগলের হাট লাগানোর বিষয়ে অভিযোগ পেয়েছি খুব শিগগির ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

BIGTheme.net • Free Website Templates - Downlaod Full Themes
Scroll Up
error: Content is protected !!